ভিআইপিদের নিরাপত্তায় পুলিশের বিশেষ ইউনিট

শেষের পাতা

আল-আমিন | ১৪ মার্চ ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৫১
সড়ক পথে ভিভিআইপি ও ভিআইপিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। গঠন করা হচ্ছে গার্ড অ্যান্ড প্রটেকশন নামে পুলিশের বিশেষ ইউনিট। এ ইউনিটের প্রধান হবেন পুলিশের ডিআইজি পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা। তার অধীনে একজন এডিশনাল ডিআইজি, একজন এডিশনাল এআইজি, দুইজন এসপি এবং ৩ জন এডিশনাল এএসপি থাকবেন। প্রথম পর্যায়ে এ ইউনিটে 
থাকবে প্রায় ১২০০ সদস্য। পর্যায়ক্রমে সংখ্যা বাড়ানো হবে। ইউনিট সদস্যদের থাকবে আলাদা পোশাক, আলাদা ইউনিফরম এবং ৮ দশমিক ৬২ ক্যালিবারের চাইনিজ রাইফেল। ধীরে ধীরে ইউনিটের জন্য উন্নতমানের রসদ কেনার উদ্যোগ নিবে পুলিশের সদর দপ্তরের লজেস্টিক শাখা।
নতুন এই ইউনিটের কাজ হবে ভিআইপিদের শুধু সড়ক পথে এক স্থান থেকে আরেক স্থানে চলাচলে নিরাপত্তা দেয়া। এছাড়াও ভিআইপি যে সড়ক দিয়ে যাবেন ওই সড়কে এক ঘণ্টা আগে থেকে পূর্ণ নিরাপত্তার জন্য এই ইউনিটের সাদা পোশাকে থাকা কয়েকজন সদস্য গোয়েন্দা নজরদারি করবে। সড়কের পূর্ণ নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত হলেই ওয়াকিটকির মাধ্যমে তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বার্তা দেবেন। এরপর ভিআইপি ওই সড়ক দিয়ে গন্তব্যস্থলে যাবেন। ঢাকাসহ এটি পর্যায়ক্রমে বিভাগীয় শহরগুলোতে গঠন করা হবে। ঢাকার প্রটোকলের আওতাধীন কোনো ভিআইপি যদি বাইরের কোনো জেলায় যায় তাহলে ঢাকা থেকে ওই জেলা পর্যন্ত সড়ক পথে আগে এবং পেছেন ইউনিটের সদস্যরা গাড়ি নিয়ে দায়িত্ব পালন করবেন। এরইমধ্যে ওই ইউনিটের কাজের পরিধি ও ভিআইপিদের নিরাপত্তায় কতটুকু অবদান রাখতে পারে তার বিস্তারিত নথি পুলিশ সদর দপ্তর থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে। শিগগিরই ইউনিটটি গঠন প্রক্রিয়া শুরু হবে। ইউনিটির কার্যালয় রাজারবাগ পুলিশ লাইনে করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এতে সেখানে থাকা হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজির সঙ্গে ইউনিট প্রধানের সমন্বয় সাধন হবে। এ প্রসঙ্গে পুলিশের আইজি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারি মানবজিমনকে জানান, ‘ভিআইপিদের নিরাপত্তায় ‘গার্ড অ্যান্ড প্রকেটশন’ পুলিশ নামে নতুন একটি ইউনিট খোলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছে। দ্রুতই এই ইউনিট গঠন হবে। পুলিশ সদর দপ্তরের প্রশাসনিক শাখা জানিয়েছে, কয়েক বছর আগে ভিভিআইপি এবং ভিআইপিদের বাসা ও অফিসের নিরাপত্তার কাজে এসপিবিএন নামে একটি ইউনিট গঠন করা হয়েছিল। ওই ইউনিটের সদস্যরা দায়িত্ব পালনে সফলতা দেখিয়েছে। ইতিমধ্যে এই ইউনিটের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং গণভবনে দায়িত্ব পালন করছেন। সংশ্লিষ্টরা জানান, তারই আদলে পুলিশে খোলা হচ্ছে ‘গার্ড অ্যান্ড প্রটেকশন পুলিশ’ শাখা। ভিআইপিদের যাতায়াতে গাড়ির আগে অথবা পেছনে অথবা রাস্তায় যানবাহন নিয়ন্ত্রণে ঢাকাসহ সারা দেশের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট থাকা পুলিশের সদস্যরা দায়িত্ব পালন করেন। তারা পুলিশের বিভিন্ন ব্যারাকে থাকেন। সিডিউল অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করবেন তারা। আলাদা ইউনিট গঠন হলে পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টের পুরো দায়িত্ব পালন করবে গার্ড অ্যান্ড প্রকেটশন পুলিশ।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

দাউদ

২০১৮-০৩-১৪ ০৪:০৪:০৩

একটা গণতান্ত্রিক সমাজ-রাষ্ট্র কায়েম না হবার ফলাফল এসব । রাষ্ট্রও জাত পাত বৈষম্য তৈরী করে ; বাংলাদেশে এ বৈষম্যের বিকার বিকট রূপ নিয়েছে । গণমানুষের ট্যাক্স ভ্যাটের টাকায় ক্ষমতার কেন্দ্রে থাকা লোকগুলো কথিত ভিআইপি হয়ে মজা লুটবে আর আম জনতার নাভি শ্বাস উঠুক তাতে কি ?

মোজাম্মেল হোসেন

২০১৮-০৩-১৩ ২০:১৭:০২

অতীতে সড়ক পথে কোনও ভিভিআইপি'র নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয়ে থাকলে এ রকম পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে।

আপনার মতামত দিন

বিক্রমসিংহর ক্ষমতা ফিরে পাওয়া সহজ করলো সুপ্রিম কোর্ট

চকরিয়ায় হাসিনা আহমেদের গণসংযোগে হামলা, গুলিবর্ষণ

সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি মামলা

নরসিংদীতে বিএনপি প্রার্থীর গাড়িতে হামলা, আহত ৭

‘ভিন্নমতের কণ্ঠরোধের জন্যই আমাকে ধরা হয়েছিল’ (অডিও)

তরুণ ভোটারদের প্রধান টার্গেট করবে বিএনপি

মালিতে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ৪০

মাহবুব উদ্দিন খোকনের গাড়ি বহরে হামলা

গুগল টপ সার্চলিস্টে বাংলাদেশিদের মধ্যে শীর্ষে খালেদা জিয়া

নিরাপত্তার আবেদন নিয়ে ইসিতে হাফিজউদ্দিন

মনে হচ্ছে পুলিশ আমাদের প্রতিদ্বন্দী: আলাল

বিএনপি ও জামায়াতের ৩ শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

বিএনপি প্রার্থী ফজলুল হক মিলন গ্রেপ্তার

আবার ব্রাসেলসমুখী তেরেসা মে

বাঁধার কারণে প্রচারণা চালাননি আফরোজা আব্বাস

পুলিশি অত্যাচারে আমার নেতাকর্মীরা মাঠে নামতে পারছে না: নীরব