নায়িকা বানানোর প্রলোভনে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ

দেশ বিদেশ

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ১৮ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:০৭
টাঙ্গাইলের গোপালপুরে সিনেমার নায়িকা বানানোর প্রলোভন দেখিয়ে  এক কলেজছাত্রীকে (১৯) আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে আকাশ ওরফে ফারুক শিকদারের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আকাশকে আটক করেছে পুলিশ। ধর্ষক আকাশ ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী থানার মাইটকুমরা গ্রামের কাইয়ুম শিকদারের ছেলে। রোববার রাতে গোপালপুর উপজেলার ভোলারপাড়া গ্রামবাসী ছাত্রীকে উদ্ধার করে অভিযুক্ত ধর্ষককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দেয়। পরে রোববার গভীর রাতে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আকাশকে প্রধান আসামি করে তার সহযোগী অজ্ঞাত আরো দু’জনের বিরুদ্ধে গোপালপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। সোমবার দুপুরে অভিযুক্ত আসামি আকাশকে টাঙ্গাইল আদালতে প্রেরণ করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, গোপালপুর সরকারি কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ওই ছাত্রী গত ২১শে জানুয়ারি সকালে কলেজে স্থানীয় এমপি’র সংবর্ধনা ও নবীন বরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেয়। অনুষ্ঠান শেষে থেকে বাড়ি ফেরার পথে ওই ছাত্রীকে  রাস্তা থেকে মাইক্রোবাসযোগে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে নিয়ে যায় আকাশ। সেখানে একটি বাসায় রেখে সিনেমার নায়িকা বানানোর কথা বলে প্রায় তিন মাস টানা ধর্ষণ করে। এদিকে ধর্ষিতার সঙ্গে সুকৌশলে মোবাইলে যোগাযোগ করে তার বড় বোন। বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে রোববার বিকেলে তাদেরকে টাঙ্গাইলের গোপালপুরের উপজেলার ভোলারপাড়া গ্রামে নিয়ে আসা হয়। এই সুযোগে স্থানীয়রা ধর্ষক আকাশ ওরফে ফারুক শিকদারকে গণধোলাই দিয়ে ওই ছাত্রীসহ দু’জনকেই পুলিশে দেয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত হাসান আল মামুন বলেন, এ ঘটনায় মেয়ের বাবা রোববার রাতে আকাশকে প্রধান আসামী করে তার সহযোগী অজ্ঞাত আরো দু’জনের বিরুদ্ধে গোপালপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। সোমবার দুপুরে অভিযুক্ত আসামি আকাশকে টাঙ্গাইল আদালতে প্রেরণ করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এছাড়াও ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Saidul

২০১৯-০৪-১৭ ২২:১২:০৮

নায়িকা বানিয়ে দিলে তখন ধর্ষন হতোনা!!!???? ছি!! অধপতন ছি!!

আপনার মতামত দিন

রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে সেনাসদস্য নিহত

ঈদে সড়কেই প্রাণ গেল ২২৪ জনের

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন আদৌ শুরু হচ্ছে কি?

কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮

এখনো উচ্চ ঝুঁকি ২৪ ঘণ্টায় ১৭০৬ রোগী ভর্তি

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ

ডেঙ্গুর প্রজননস্থলে কতটা যেতে পারছেন মশক নিধন কর্মীরা?

বৈঠকের পর চামড়া বিক্রিতে সম্মত আড়তদাররা

জনগণকে সতর্ক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার পরামর্শ

ছিনতাইকারীর হাতে খুন হন কলেজছাত্র রাব্বী

শিক্ষিকাকে গণধর্ষণের পর হত্যা

শহিদুল আলমের মামলা স্থগিতই থাকবে

ডেঙ্গুর ভয়ে স্কুলে যাওয়া বন্ধ তবুও...

রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে ঢামেকে সংঘর্ষ, আহত ২৫

টার্গেট রাজনৈতিক সম্পর্ক দৃঢ়করণ

ইউজিসি প্রফেসর হলেন ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ