পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির পক্ষে ঢেউ চলছে, দাবি অমিত শাহর

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ২২ এপ্রিল ২০১৯, সোমবার
একদিকে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন লাগাতার বলে চলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি গোল্লা পাবে, ঠিক তখনই কলকাতায় পা রেখে সোমবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ দাবি করেছেন, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির পক্ষে ঢেউ চলছে। প্রথম দুই দফার ভোটই তা প্রমাণ করে দিয়েছে। সেইসঙ্গে তিনি বলেছেন, এখন সময় এসেছে মমতার তৈরি করা ভয়ভীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো।  বিজেপি সভাপতি মনে করছেন, পশ্চিমবঙ্গ্যে এবার বড় পরিবর্তন হতে চলেছে। মমতা প্রথম দুই দফা থেকেই বুঝে গিয়েছেন এবার আর জয় আসবে না। প্রচারেও ভালো ভিড় হচ্ছে না। হতাশায় কমিশনের সমালোচনা করছেন। অবশ্য দুই দফা নির্বাচনের শেষে দুই প্রতিপক্ষই দাবি করেছেন, তারাই যে ৫টি আসনে ভোট হয়ে গিয়েছে তার সব কটিই পাবেন। অমিত শাহ এদিন প্রথমেই সাংবাদিক সম্মেলন করে দিনের কর্মসুচি শুরু করেছেন।

তিনি দাবি করেছেন, মমতা  এখানে গণতন্ত্রকে কবর দিয়েছেন। বিজেপি সভাপতি ভোটারদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন, শরণার্থী সমস্যার সমাধান একমাত্র বিজেপিই করতে পারে। তুষ্টুকরণের রাজনীতি করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, যার ফলে সমস্যা বৃদ্ধি পায়। তৃণমূল নেত্রীর সমস্যা সমাধানের যে কোনও সদিচ্ছা নেই সেকথাও এদিন শাহ বলেছেন। এনআরসি ও নাগরিকত্ব সংশোধন বিলের প্রসঙ্গ তুলে অমিত শাহ ফের বলেছেন, এনআরসি, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। দেশের সুরক্ষার জন্যই তা দরকার। বিজেপি দেশে এনআরসি করবেই। নাগরিকত্ব বিলও আইনে পরিণত করা হবে। দেশের সুরক্ষা কাদের হাতে তা ঠিক হবে এই ভোটের মাধ্যমে  বলে জানিয়েছেন অমিত শাহ। তিনি বলেছেন, সন্ত্রাস দমনে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

তাই দেশবাসী ঠিক করবেন কারা আসবে দেশ পরিচালনায় ক্ষমতায় আসবেন। এই প্রসঙ্গে বিরোধীদের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুলে বিজেপি সভাপতি বলেছেন, দেশ কিভাবে সুরক্ষিত থাকবে তা বিরোধীদের ইস্তেহারে নেই। মঙ্গলবার তৃতীয় দফার ভোটের আগে রাজ্যে অমিত শাহ চারটি সভা করছেন। তিনি রাজ্যের ভোটারদের কাছে ৫ বছরে সোনার বাংলা গড়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন। অমিত শাহ এদিন দাবি করেছেন, গোট দেশ নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্ব মেনে নিয়েছে। অন্যদিকে বিরোধীদের কোনও নেতৃত্ব দেবার মতো কেউ নেই।  



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে সেনাসদস্য নিহত

ঈদে সড়কেই প্রাণ গেল ২২৪ জনের

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন আদৌ শুরু হচ্ছে কি?

কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮

এখনো উচ্চ ঝুঁকি ২৪ ঘণ্টায় ১৭০৬ রোগী ভর্তি

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ

ডেঙ্গুর প্রজননস্থলে কতটা যেতে পারছেন মশক নিধন কর্মীরা?

বৈঠকের পর চামড়া বিক্রিতে সম্মত আড়তদাররা

জনগণকে সতর্ক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার পরামর্শ

ছিনতাইকারীর হাতে খুন হন কলেজছাত্র রাব্বী

শিক্ষিকাকে গণধর্ষণের পর হত্যা

শহিদুল আলমের মামলা স্থগিতই থাকবে

ডেঙ্গুর ভয়ে স্কুলে যাওয়া বন্ধ তবুও...

রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে ঢামেকে সংঘর্ষ, আহত ২৫

টার্গেট রাজনৈতিক সম্পর্ক দৃঢ়করণ

ইউজিসি প্রফেসর হলেন ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ