বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলায় যুবলীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৭

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী থেকে | ২৬ মে ২০১৯, রোববার
বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলায় যুবলীগ নেতা বাবুসহ ৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল তাদের কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। বেগমগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নুর আলম মানবজমিনকে জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টায় আওয়ামী লীগ নেতা হারুন ও যুবলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান বাবুর নেতৃত্বে ৬০/৭০ জন আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ছয়ানী ইউনিয়নের দোয়ালিয়া বৈদ্যবাড়িতে হামলা চালায়। তারা বাড়ির লোকজনদের নির্দয় ভাবে মারধর করে ঘর দুয়ার ভাঙচুর করে। এক পর্যায়ে হারুনুর রশিদ প্রকাশ হারুন (৪০), সাইফুল ইসলাম (৩০), মাহবুবুর রহমান বাবু ওই বাড়ির গৃবধূ (২৫) কে গণধর্ষণ করে। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় এবং ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এবং পরবর্তীতে রাতেই তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গভীর রাতে ধর্ষিতা বাদী হয়ে বেগমগঞ্জ থানায় হারুনুর রশিদ, সাইফুল ইসলাম ও মাহবুবুর রহমান বাবুকে আসামি করে মামলা করেন।
মামলা পরপরই বেগমগঞ্জ থানা পুলিশ ও র‌্যাব-১১ অভিযান চালিয়ে ঘটনার মূলনায়ক ধর্ষক হারুনুর রশিদ, মাহবুবুর রহমান বাবু, সাইফুল ইসলাম, পারভেজ, আনোয়ার হোসেন, পেয়ার আহমেদ তারেক, সামছুল আলম রাসেলকে গ্রেপ্তার করেছে। এর মধ্যে যুবলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান বাবুর কাছ থেকে পুলিশ দেশীয় তৈরি এলজি ১টি ও ১ রাউন্ড গুলি এবং ১০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে ও মাদকদ্রব্য আইনে আরো ২টি মামলা করা হবে বলে ওসি (তদন্ত) নুরে আলম জানান। বেগমগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ফিরোজ আলম মোল্লা মানবজমিনকে জানান, মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে বেগমগঞ্জ থানায় আরো ৬টি মামলা রয়েছে। সে এলাকার তালিকাভুক্ত চিহ্নিত শীর্ষ সন্ত্রাসী এবং বেগমগঞ্জ পশ্চিমাঞ্চলের ত্রাস দস্যু নিজাম বাহিনীর অন্যতম ক্যাডার। হারুনুর রশিদ ও মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে আলাদা ভাবে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হচ্ছে। গতকাল আসামিদের আদালতে হাজির করার পর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. আজিম জানান, ভিকটিম (২৫)কে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের ২নং গাইনি ওয়ার্ডে বিভাগীয় প্রধান ডা. আবু নাছেরের অধীনে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. খলিল উল্যা সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধান করছেন। গাইনি ওয়ার্ডের প্রধান ডা. আবু নাছের জানান, প্রাথমিক ভাবে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। তবে ধর্ষিতা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এবার শামীমাকে ধর্ষণের অভিযোগ

সাবেক স্বামীর ছোঁড়া এসিডে ঝলসে গেলো ফাতেমা ও তার মেয়ে

ছেলের হাতে শিক্ষক বাবা খুন

মাগুরায় ছাত্রী হোস্টেলে ঢুকে ছাত্রলীগের নিপীড়ন

যে কারণে থাইল্যান্ডে রাজ পদবী কেড়ে নেয়া হলো সিনীনাতের

ঠাকুরগাঁও সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রকে সংঘাতের কিনারে পৌঁছে দিয়েছিল

জানতেন না মাশরাফি

‘ক্ষমতায় ফিরছে’ কানাডায় ট্রুডো সরকার

কুষ্টিয়ায় মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নিহত ২

‘এটি সারাজীবন আমার মনে থাকবে’

খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সেক্রেটারি গ্রেপ্তার

সরকারের একাধিক টিম সিঙ্গাপুরে

নজিরবিহীন ধর্মঘটে ক্রিকেটাররা

শামীম-খালেদের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

প্রেস কর্মচারী থেকে ক্যাসিনো মালিক