ইউরোপ বিএনপির নেতারা খালেদা জিয়ার দ্রুত মুক্তি চান

প্রবাসীদের কথা

আবদুল মোমিত রোমেল ফ্রান্স, থেকে | ৩১ মে ২০১৯, শুক্রবার
ঈদের পর ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বিএনপিকে চাঙ্গা করতে আসছে নতুন কর্মসূচি, এমনটি জানা যায় ফ্রান্স বিএনপির শীর্ষ বেশ কয়েকজন নেতার মুখ থেকে। এ কর্মসূচির লক্ষ্য হচ্ছে বিএনপির তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করা। ইউরোপীয় বিএনপির শীর্ষস্থানীয় বেশ কয়েকজন নেতা গোপনে এক বৈঠক করেন ফ্রান্সে; বাংলাদেশ থেকে আসা কেন্দ্রীয় স্ট্যান্ডিং কমিটিরও একজন সদস্য ছিলেন ওই বৈঠকে।

নেতারা একমত হন যেকোনো শর্তে দ্রুত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কারারুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্ত করতে হবে। বিএনপি নেত্রী কারারুদ্ধ হওয়ার পর থেকে এবং ১৮ই ডিসেম্বর ২০১৮ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বড় বিপর্যয় হওয়ার কারণে ইউরোপ বিএনপির অধিকাংশ প্রবাসী নেতাকর্মী একদম নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে আসছিলেন। যার প্রভাব পড়েছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বিএনপি নীরব ইফতার মাহফিলে। বিগত বছরগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায় ইউরোপীয় বিএনপির সবচেয়ে বেশি সক্রিয় এবং সরগরম ছিল রমজান মাসে বিভিন্ন সভা-সেমিনার এবং ইফতার মাহফিল আয়োজনের মাধ্যমে। কিন্তু বর্তমান রমজান মাসে এর চিত্র ভিন্ন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমানের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এবং কেন্দ্রীয় নির্দেশ মোতাবেক তাদের সংগঠনের কার্যক্রম ইউরোপসহ সারা বিশ্বে চলছে। তিনি জানান, তাদের নেত্রী কারাগারে থাকায় এবার ইউরোপে ইফতার আয়োজনে বেশি মনোযোগী না হয়ে তারা দেশে অসহায় পরিবারগুলোর মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করছেন এবং তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করার জন্য ইউরোপের প্রত্যেক নেতাকর্মীর নির্দেশ দিয়েছেন।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকার গণতন্ত্রকে গলাটিপে হত্যা করেছে ৩০শে ডিসেম্বর নির্বাচনে। তারপর থেকে দল ভাঙার জন্য শীর্ষস্থানীয় নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে অনেক ধরনের ষড়যন্ত্র করা হয়েছে অনেক দলীয় নেতাকর্মীকে গুম, হত্যা এমনকি তাদের দলের ভাইস চেয়ারম্যানের উপরে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলার রায় একটার পর একটা হচ্ছে। শীর্ষ নেতাদের গোপন বৈঠক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নেত্রীকে আমরা দলের বাইরে ও নিজের মায়ের মতো শ্রদ্ধা করি।

সেই জায়গা থেকে চায়ের আড্ডায় শীর্ষস্থানীয় নেতারা আলাপ করতে পারেন এর জন্য মায়ের মুক্তি চাওয়াটা কোনো অপরাধ না এটাকে গোপন বৈঠক বলার কোনো অবকাশ নেই। রাজনীতির বাইরে আমরাও তো রক্ত-মাংসে গড়া মানুষ, একজন অসুস্থ, বয়স্ক মহিলা মিথ্যা ষড়যন্ত্র মামলায় প্রতিহিংসার রাজনীতির শিকার হয়ে কারাভোগ করছেন। শীর্ষস্থানীয় আমরা সব নেতারাই তাকে মা হিসেবে মনে করি এবং সেই জায়গা থেকে আমরা তার নিঃশর্ত মুক্তি চাই। ফ্রান্স বিএনপির সেক্রেটারি এমএ তাহের বলেন, যদিও বর্তমান সরকার বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে তারপরও আইনি প্রক্রিয়া এবং আন্দোলনের মাধ্যমে ‘মাদার অব ডেমোক্রেসি’ বিএনপি চেয়ারপারসনকে মুক্ত করার পথে তারা এগোচ্ছেন।

সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল খান বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীনরা বাংলাদেশকে একটি গুম, খুন ও ধর্ষকের রাজ্যে পরিণত করেছে। ফিনল্যান্ড বিএনপির সভাপতি কামরুল হাসান জনি, ডেনমার্ক বিএনপির সভাপতি গাজী মনির বলেন, নেত্রীকে মুক্ত করার জন্য কেন্দ্রের নির্দেশ মোতাবেক ডেনমার্ক ও ফিনল্যান্ড বিএনপি যে কর্মসূচি আসুক না কেন তারা প্রস্তুত আছেন, জার্মান বিএনপির সেক্রেটারি গনি সরকার বলেন, এমন আন্দোলন করতে হবে যাতে ক্ষমতাসীনদের ওপর চাপ প্রয়োগ করে নেত্রীকে মুক্ত করা যায়। সুইডেন বিএনপির সেক্রেটারি মোহন আহমেদ, ইতালি বিএনপির সেক্রেটারি নাসির ঢালি বলেন, মিথ্যা এবং ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে তাদের চেয়ারপারসনকে কারাবন্দি করে রেখেছে বর্তমান সরকার। এই সরকার জিয়া পরিবারকে চিরতরের জন্য ধ্বংস করার পরিকল্পনা করেছে। সুতরাং নেত্রীকে কারাগার থেকে মুক্ত করা হচ্ছে তাদের প্রধান লক্ষ্য।

বেলজিয়াম বিএনপির সেক্রেটারি ইকবাল হোসেন বাবু, আয়ারল্যান্ড বিএনপির সেক্রেটারি কবির আহমদ বলেন, কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমানের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ হচ্ছে কেন্দ্রের সবুজ সিগনাল পেলেই ইউরোপিয়ান বিএনপিকে একটা শক্তিশালী প্লাটফর্মে দাঁড় করাবেন এবং ইউরোপ থেকেই গণতন্ত্রের মা তাদের প্রিয় নেত্রীর মুক্তির জন্য গণআন্দোলন শুরু করবেন। তাদের এই পরিকল্পনার সত্যতা পাওয়া যায় বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমানের সঙ্গে আবার যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমাদের সংসদ সদস্যরা ইতিমধ্যে সংসদে শপথ নিয়েছেন এটা আন্দোলনের একটি কৌশল। তিনি আরো বলেন, বিএনপির অনেক সিনিয়র নেতা মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আইন আদালত এর উপরে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ না করেন তাহলে প্রচলিত আইনের মাধ্যমে এখনো তাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনা সম্ভব। এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক প্রবাসী বিএনপি নেতাকর্মীরা বলেন, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বিএনপিকে চাঙ্গা করা বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমানের পক্ষে সম্ভব কারণ তিনি ইউরোপের মধ্যে অন্যতম একজন জনপ্রিয় নেতা। তার নেতৃত্বে গণআন্দোলনের ডাক দেয়া হলে সরকার পতনের সূচনা হতে পারে এই আন্দোলনের মাধ্যমে।





এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে তদন্ত

ইতিহাস গড়তে চান পাপন-ডালিয়া

যারা প্ররোচনা দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী (অডিও)

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পর ডানা মেললো ‘গাঙচিল’

শামীমের লাশ মিললো কুমিল্লায়, নানা নাটকীয়তা

২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত ১৫৯৭ জন হাসপাতালে ভর্তি

এডিসের লার্ভা নিয়ে হার্ডলাইনে সিসিক

বাসাবাড়িতে অভিযানে সুফল মিলবে কি?

দক্ষিণে যেভাবে চলছে অভিযান

ঠাকুরগাঁওয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪

সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদের ইন্দোনেশিয়া সেনা সদর পরিদর্শন

২১শে আগস্ট নিয়ে রাজনীতি করছে আওয়ামী লীগ: রিজভী

ওঝার কাণ্ড

অনিশ্চয়তায় প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া

সিলেটে আলোচিত যুবলীগ নেতা জাকির আটক

প্রমাদ গুনছে ভারতের অন্য রাজ্যগুলোও