স্ত্রীর ডেঙ্গু রোগ

৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে ডিএসসিসিকে আইনজীবীর নোটিশ

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:২২
স্ত্রী ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হওয়ায় ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তানজিম আল ইসলাম। আগামী ৩ দিনের মধ্যে খিলগাঁও ১ নং ওয়ার্ডে মশক নিধনে কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। গতকাল দুপুরে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে এই আইনি নোটিশ পাঠান তিনি। নোটিশে বলা হয়, এডিস মশা নিধনে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ও খিলগাঁওয়ের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মশা নিধনে তিন দিনের মধ্যে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ করা হলো। অন্যথায়, আইন অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ আদায়ে ও প্রতিকার চেয়ে রিট করা হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

নোটিশে ওই আইনজীবী উল্লেখ করেছেন, গত ২৯ জুন আমার স্ত্রী ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। তার রক্তে প্লাটিলেট ১১ হাজারে নেমে অবস্থা সংকটাপন্ন হয়ে পড়ে। চিকিৎসকদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় পাঁচ দিন হাসপাতালে থাকার পর কিছুটা সুস্থতা লাভ করেন। এর আগে গত বছরের অক্টোবরে আইনজীবী তানজীম নিজেও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন।
নোটিশে বলা হয়, নোটিশ পাওয়ায় সাত কার্যদিবসের মধ্যে আপনাদের ব্যর্থতার দরুণ আমাকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে বাধিত করবেন। একই সঙ্গে, এডিস মশা নিধনে কী কী পদক্ষেপ ও কত টাকা ব্যয় করেছেন, তা তথ্য অধিকার আইনমতে লিখিতভাবে অবহিত করতে অনুরোধ করা হলো। সর্বোপরি, এডিস মশা নিধনে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ও খিলগাঁওয়ের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মশা নিধনে তিন দিনের মধ্যে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ করা হলো। অন্যথায়, আইন অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ আদায়ে ও প্রতিকার চেয়ে রিট করা হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

নোটিশে এই আইনজীবী দাবি করেন, নোটিশ গ্রহীতাদের প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে মশা নিধন করা ও সিটির বাসিন্দাদের জন্য শহরকে বাসযোগ্য নগরীতে রূপান্তরিত করা। কিন্তু, খিলগাঁও থানার ১ নম্বর ওয়ার্ডে প্রায় তিন বছর বসবাস করছি। এখন পর্যন্ত মশা নিধনে কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে দেখিনি। এমনকি, সচেতনতামূলক প্রচারণাও করা হয়নি। ভয়ঙ্কর এডিস মশা নিধনে আপনাদের ব্যর্থতা স্পষ্ট প্রতীয়মান ও এর জন্য আপনারা দায়ী। আমার স্ত্রীর চিকিৎসা ও তার ডেঙ্গুর কারণে সন্তানসহ পরিবার অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন। এ ক্ষতির দায়ভার আপনাদের ওপর বর্তায়। কারণ, নাগরিকদের মশার উৎপাত থেকে বাঁচানোর দায়িত্ব আপনাদেরই। আমার স্ত্রীর চিকিৎসা বাবদ ৫০ হাজার টাকা, আমার আইনজীবী হিসেবে কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকার জন্য আড়াই লাখ টাকা, দুই সন্তানের শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির পরিমাণ ও পরিবারের নিদারুণ মানসিক ক্ষতির পরিমাণ অপূরণীয় হলেও ৪৭ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হলো। অর্থাৎ, আপনাদের মশা নিধনে ব্যর্থতার দরুন আমার মোট ৫০ লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এ ক্ষয়ক্ষতির জন্য আপনারা আইনত দায়ী।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

খলিলুর রহমান

২০১৯-০৭-১২ ০১:০০:৫৮

মশা নিধনের জন্য প্রতিকার প্রার্থনা বা দাবী যৌক্তিক।কিন্তু ৫০ লক্ষ টাকা কি কারনে ক্ষতিপূরণ বাবদ চাইলেন,তা বোধগম্য নয়।

আপনার মতামত দিন

‘আমার সামনে তখন একজন লিজেন্ডকে দেখি’

অস্ট্রেলিয়ায় প্রতিবাদের নামে নগ্নতা

টাকা কুড়াতে নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়লেন শতাধিক মানুষ!

মানবতাবিরোধী অপরাধে গাইবান্ধার ৫ আসামির ফাঁসি

অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত হলে দায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

গরম তেলে ঝলসে দিয়ে স্ত্রীকে তালাবদ্ধ

ডার্ক গ্রে তালিকাভুক্ত হতে পারে পাকিস্তান

ভারতে শাখা বিস্তার করছে জেএমবি

আন্দোলনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দুপুরে

মেক্সিকোতে অস্ত্রধারীদের গুলিতে নিহত ১৩ পুলিশ

তুরস্কের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ, ইইউয়ের অস্ত্র বিক্রি স্থগিত

সুন্দরবনে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৪ বনদস্যু নিহত

শায়েস্তাগঞ্জে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় যুবক নিহত

নবীনগর পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী জয়ী

লক্ষ্মীপুরে দু’দল ডাকাতের ‘গোলাগুলি’তে একজন নিহত

যেভাবে ভারতের ওপর নির্ভরশীলতার ইতি টানতে চায় নেপাল