ঢাবি থেকে ৭ কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আবারো শাহবাগ মোড় অবরোধ

শেষের পাতা

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার | ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:১৮
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্তি থেকে রাজধানীর সাত সরকারি কলেজ বাদ দেয়ার দাবিতে কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা। গতকাল অধিভুক্তি বাতিলসহ চার দফা দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করেছে তারা। যদিও বেশ কয়েকটি বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠানের খবর পাওয়া গেছে। শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ-সমাবেশের পাশাপাশি প্রায় দেড় ঘণ্টা রাজধানীর ব্যস্ততম সড়ক শাহবাগ মোড় অবরোধ করে রাখে। বন্ধ করে দেয়া হয় টিএসসি’র  চারপাশের সড়কও।

এতে করে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয় এসব এলাকায়। ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ। দুপুর ২টার দিকে শাহবাগের অবরোধ তুলে নিলেও আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা। আন্দোলনের মুখপাত্র ব্যবস্থাপনা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র মোহাম্মদ শাকিল বলেন, আগামী রোববার একই সময়ে আমরা আবারও শাহবাগে অবস্থান নেব। অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, সাত কলেজ অধিভুক্তির বিষয়টি এককভাবে ঢাবির সিদ্ধান্ত নয়। এটি একটি জাতীয় সিদ্ধান্ত। অধিভুক্তির কারণে যে বিদ্যমান সমস্যা তৈরি হয়েছে তা সমাধানের কাজ চলছে। এর জন্য সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে। জানা গেছে, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সকাল থেকে বেশ কয়েকটি বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে শিক্ষার্থীরা। সকাল ১১টায় টিএসসির সন্ত্রাস বিরোধী রাজু স্মারক ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে তারা।

এ সময় শিক্ষার্থীরা টিএসসির চারদিকের রাস্তা বন্ধ করে দেন। এতে তীব্র যানজট তৈরি হয় এ এলাকায়। এ সময় ‘সাত কলেজের ঠিকানা, ঢাবিতে হবে না’; ‘রাখতে ঢাবির সম্মান, সাত কলেজ বেমানান’; ‘অবিলম্বে সাত কলেজ, বাতিল কর করতে হবে’ ইত্যাদি স্লোগান দেন। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ- সাত কলেজের অধিভুক্তির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। তারা বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৭ হাজার শিক্ষার্থীর শিক্ষা কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনায় ব্যর্থ হচ্ছে সেখানে অতিরিক্ত আরো ২ লাখ শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় হিমশিম খাচ্ছে। নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষার ফলসহ যাবতীয় কাজ করতে ব্যর্থ হচ্ছে প্রশাসন। এ ছাড়াও সাত কলেজের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্থানে বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হতে হচ্ছে। কারণ, এসব কলেজের শিক্ষার্থীরাও নিজেদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলে পরিচয় দিচ্ছে। তাই এদের কর্মকাণ্ড সাধারণ মানুষদের কাছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে নেতিবাচক ধারণা তৈরি হচ্ছে। সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলসহ শিক্ষার্থীদের চার দফা দাবি হলো- চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকেই অধিভুক্ত সাত কলেজ বাতিল; দুই মাসের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব পরীক্ষার ফলাফল দেয়া; বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম ডিজিটালাইজেশন করা এবং ক্যাম্পাসে যানবাহন নিয়ন্ত্রণ ও রিকশা ভাড়া নির্ধারণ করা।

দুপুর পৌনে ১২টার দিকে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি কার্জন হলসহ ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সাড়ে ১২টার দিকে শাহবাগ মোড়ে গিয়ে অবস্থান নেয়। শিক্ষার্থীদের অবস্থানের কারণে শাহবাগ মোড়ের চারদিকের রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। তীব্র যানজট সৃষ্টি হয় এসব এলাকায়। ভোগান্তিতে পড়েন বিভিন্ন হাসপাতালমুখী রোগীসহ সাধারণ মানুষ। এ সময় সাত কলেজ বাতিলের দাবিতে বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা সড়কটি বন্ধ রাখে আন্দোলনকারীরা। বেলা ২টার দিকে শিক্ষার্থীরা সড়ক ছাড়লে এ পথের যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা ‘সাত কলেজ বাতিল চাই’ কমিটির মুখপাত্র ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র মো. শাকিল মিয়া বলেন, আমাদের মূল দাবি হচ্ছে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল। কেননা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তারা তাদের শিক্ষার্থীদের সমস্যার সমাধান করতে পারেন না। সেখানে তারা অধিভুক্ত কলেজের আরো দুই লাখ শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নেবে কিভাবে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ছাত্রী আশোফা তাসনিফ বলেন, আমরা এত কষ্ট করে ঢাবিতে চান্স পেয়েছি। কিন্তু আমাদের সমস্যার শেষ নেই। অথচ ক্ষণিকা বাস এবং চৈতালি বাসে অধিভুক্তি কলেজের শিক্ষার্থীরা আমাদের এক বোনকে যে হয়রানি করা হয়েছে, আমরা তার বিচার চাই। তাদের কারণে আমরা অনেক সময় পরিচয় সংকটে পড়ি। তাদের অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঢাবি নিয়ে বাজে মন্তব্য করে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Syed

২০১৯-০৭-১৮ ১৩:৫৯:০৫

Go ahead. We are with you. From Londond Congratulations for such an amazing work.

আপনার মতামত দিন

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও বড় জয় কিশোরদের

রাখাইনে নির্যাতন অব্যাহত, কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের আহ্বান

এ কেমন শত্রুতা!

মওদুদের রিভিউ খারিজ, মামলা চলবে

ঢাকায় কিশোর গ্যাংয়ের ১৭ সদস্যের কারাদণ্ড

মাদারীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

‘মিয়ানমারের অভিযোগ হাস্যকর’

রিয়ালের ড্রয়ে হতাশ জিদান

মির্জাপুরে গুলি করে ২৬ লাখ টাকা ছিনতাই

কিশোরগঞ্জে ডেঙ্গুতে শিশুর মৃত্যু

সাবেক আইজি প্রিজনস সৈয়দ ইফতেখারকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

মোদির সামনে কাশ্মীর ইস্যু উত্থাপন করবেন গুতেরাঁ

ওএসডি হলেন জামালপুরের সেই ডিসি

জেলখানায় সবজি চাষ করেন সেই ধর্মগুরু

ঢামেকে আরও এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু

চুল কাটায় নজরদারি