এপির রিপোর্ট

দেশে ফিরতে অনীহা রোহিঙ্গাদের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২১ আগস্ট ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:১০
মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো প্রক্রিয়ায় সাড়া দিয়েছেন হাতেগোনা কয়েকটি মুসলিম রোহিঙ্গা পরিবার। বাকিরা কোনো সাড়াই দেয়নি। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক এজেন্সি ইউএনএইচসিআর এবং বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধিদের কাছে এমন মনোভাব প্রকাশ করেছে রোহিঙ্গারা। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এপি।  

এ বিষয়ে শরণার্থী বিষয়ক বাংলাদেশের কমিশনার আবুল কালাম মঙ্গলবার বলেছেন, বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া শরণার্থী প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়ায় বাছাই করা হয়েছে ১০৫৬ জনকে। তার মধ্যে মাত্র ২১টি পরিবার ফরম পূরণ করে তা জমা দিয়েছে। তারা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তারা জানিয়েছেন ফিরে যেতে চান কিনা। এ বিষয়ে আবুল কালাম বলেন, সব পরিবারই বলেছে, তারা দেশে ফিরে যাবে না।
গত বছর ইউএনএইচসিআর, বাংলাদেশ ও মিয়ানমার একই রকম উদ্যোগ নিলে তা ব্যর্থ হয়। তখনও কোনো শরণার্থী স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে অস্বীকৃতি জানায়।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

রিপন

২০১৯-০৮-২১ ২১:১২:৩৭

কেন অনীহা, নিশ্চয়ই তা প্রকাশ করতে দেয় নি সরকার এই প্রতিবেদনে। তাতে কী? তথ্যপ্রবাহের জোয়ার রুখবে সেই সাধ্য সরকারের নেই। আমরা জানি, নাগরিকত্ব ইস্যুসহ নিরাপত্তাবিষয়ক কিছু ইস্যুর সমাধান না হলে কোন উদ্বাস্তুই ফিরে যেতে চাইবে না। বহির্বিশ্বের প্রচার মাধ্যমে বিষয়টি যথাযথভাবে বিশ্লেষিত হচ্ছে। আওয়ামি লিগ কী করে রুখবে সেসব?

আপনার মতামত দিন

টস জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে মিশন শুরু বাংলাদেশের

‘তথ্য-প্রমাণ পেলে সম্রাটের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা’

বরিশালে ডেঙ্গুতে গৃবধূর মৃত্যু

উদ্ভট নেশা যুবতীর

কুষ্টিয়ায় চাঁদাবাজির অভিযোগে দুই যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার

সঙ্গীত শিল্পী পারভেজ রবকে চাপা দেয়া বাসচালক-সহকারি গ্রেপ্তার

মা হলেন নুসরাত হত্যার আসামি কারাবন্দি মনি

এপস্টেইন যেভাবে ধর্ষণ করে আমাকে

সড়ক দুর্ঘটনায় কটিয়াদী যুবদল সভাপতি নিহত

সরকার দুর্নীতির দায় এড়াতে বিএনপিকে দোষ দিচ্ছে

কলাবাগান ক্লাবের সভাপতির বিরুদ্ধে দুই মামলা

বশেমুরবিপ্রবি বন্ধ, শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ

নগ্ন স্তনের কারণে মালয়েশিয়ায় নিষিদ্ধ হলো জেনিফার লোপেজের ছবি

টেন্ডারমুঘল শামীমের যত কাহিনী

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে বিক্ষোভ