উত্তাল জাহাঙ্গীরনগর শিক্ষকদের কর্মবিরতি

এক্সক্লুসিভ

জাবি প্রতিনিধি | ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:০২
শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজও উত্তাল রয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। দুর্নীতির অভিযোগের তদন্তসহ তিনদফা দাবিতে কর্মবিরতি, পদযাত্রা ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে অর্ধশতাধিক শিক্ষক। পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রবীন্দ্রনাথ হল-সংলগ্ন এলাকা থেকে নির্মাণাধীন হল অন্যত্র সরানো, মহাপরিকল্পনার পুনর্বিন্যাস এবং ভিসি ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে আনীত দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের দাবিতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর ব্যানারের শিক্ষকদের এই কর্মসূচি চলে। অন্যদিকে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারের সংগঠক সাইমুম ইসলাম ও ছাত্রফ্রন্ট কর্মীর ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল সকাল ১১টা থেকে ২টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেন শিক্ষকরা। একই দাবিতে সকাল সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলা ও মানবিক অনুষদের সামনে থেকে একটি পদযাত্রা বের করেন তারা। পদযাত্রাটি পুরাতন রেজিস্ট্রার ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। সেখানে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বাংলা বিভাগের অধ্যাপক রেজাউল করিম তালুকদারের সঞ্চলনায় সমাবেশে অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন,‘মাস্টারপ্ল্যানের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ে বড় সম্ভাবনা তৈরি করার কথা ছিল। কিন্তু তার পরিবর্তে আমরা দেখছি এর মধ্য দিয়ে ক্যাম্পাসে ভীতির সৃষ্টি হচ্ছে। এই উন্নয়ন প্রকল্প অনিশ্চয়তা, সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করছে। জানা গেছে 

প্রকল্পের কাজের শুরুতেই ২ কোটি টাকা ভাগাভাগি করা হয়েছে। এতে বোঝা যায়, পুরো প্রকল্পের কাজে কী পরিমাণ দুর্নীতি হতে পারে। বড় আকারের বরাদ্দের বিপত্তিও বড় হয়। একইভাবে এই মহাপরিকল্পনা সম্ভাবনার পরিবর্তে বিপত্তি তৈরি করছে।’
শিক্ষক-শিক্ষার্থী ঐক্যমঞ্চের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাপরিকল্পনাটি অসম্পূর্ণ। আমরা মহাপরিকল্পনা সংশোধন এবং দুর্নীতির সুষ্ঠু তদন্তের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে যৌক্তিক দাবি জানিয়েছি। কিন্তু প্রশাসন এই দাবিসমূহ উপেক্ষা করছে। আর এর বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীদের মারধর করা হচ্ছে, কিন্তু এর বিচার করা হচ্ছে না।’
নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, ‘পত্র-পত্রিকায় ওঠা দুর্নীতির বিরুদ্ধে ভিসি বা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোনো প্রতিবাদ পাঠাননি। বরং এই তদন্তের দাবি তোলায় প্রশাসন ছাত্রলীগকে দিয়ে হুমকি দিচ্ছে। ভিসি তার সমর্থন গোষ্ঠীর মাধ্যমে পেশীশক্তি দেখাচ্ছেন। এসব করার মাধ্যমে অভিযোগ খারিজ হয়ে যায় না। যে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে তার মধ্য দিয়ে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়ের গায়ে কালিমালিপ্ত হয়েছে। আমরা দাবি জানাচ্ছি মহামান্য আচার্য ইউজিসিকে সম্পৃক্ত করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করবেন। তদন্তের মাধমে অভিযোগ খতিয়ে দেখা হোক। আমরা কালিমা থেকে মুক্তি চাই।’

‘ভিসি তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের ব্যাপারে উদ্বিগ্ন বিধায় তিনি কর্মচারীদের দিয়ে মানববন্ধন করিয়ে পেশীশক্তি দেখাচ্ছেন, আন্দোলনের সংগঠককে ছাত্রলীগ দিয়ে মার খাওয়াচ্ছেন’ বলে দাবি করেন দর্শন বিভাগের অধ্যাপক কামরুল আহসান।
নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মির্জা তাসলিমা সুলতানা বলেন, ‘৭৩ এর অধ্যাদেশ মতে গণতান্ত্রিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় চলছে না। একাডেমিক কাউন্সিল নিয়মিত হচ্ছে না। যেখানে প্রভোস্ট হওয়ার কথা সিনিয়রদের সেখানে জুনিয়রদের দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে। প্রশংসা করাকে যোগ্যতার মাপকাঠি হিসেবে মাপা হচ্ছে। আসুন প্রতিবাদ করি। সাহস হারালে বিশ্ববিদ্যালয় তলানিতে এসে ঠেকবে।’
বাংলা বিভাগের অধ্যাপক শামীমা সুলতানা বলেন,‘স্বেচ্ছাচারিতা ও অরাজকতার বিরুদ্ধে আমরা এখানে এসে দাঁড়িয়েছি। একটি কু-পরিকল্পনার নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের টাকা লুটপাট ও পরিবারতন্ত্র কায়েমের চেষ্টা চলছে।’

সমাবেশে সম্মিলিত শিক্ষক সমাজের আহ্বায়ক অধ্যাপক আবদুল জাব্বার হাওলাদার, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক খবির উদ্দীন, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ঐক্যমঞ্চের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন, অধ্যাপক আনোয়ার উল্লাহ ভূঁইয়া, অধ্যাপক নুরুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক সায়মা খাতুন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সেই সঙ্গে সমাবেশে বিভিন্ন বিভাগের অর্ধশতাধিক শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।

হামলার প্রতিবাদ: এদিকে আন্দোলনের সংগঠন জাহাঙ্গীরনগর থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক সাইমুম ইসলাম ও ছাত্রফ্রন্ট কর্মী সোহায়েব ইবনে মাসুদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে একটি নন-ফিকশন নাটক মঞ্চত্ব করেছে আন্দোলনকারীরা। গতকাল দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের সামনে দুপুর ১২টায় নাটকটি প্রদর্শিত হয়। নাটক শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করে শিক্ষকদের সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করে।
ছাত্রলীগের মিছিল: এদিকে ‘কাল্পনিক তথ্য’ এর মাধ্যমে একটি মহল বিশ্ববিদ্যালয়কে ‘অস্থিতিশীল’ করছে দাবি করে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শাখা ছাত্রলীগ। মিছিল শেষে ছাত্রলীগ সভাপতি জুয়েল রানা বলেন, ‘ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে থাকা অবস্থায় উন্নয়ন কাজকে কেউ বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না। ’

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষ নিয়োগ

যশোরে বোমা নিষ্ক্রি করতে গিয়ে বিস্ফোরণে র‌্যাব সদস্য আহত

মেসেজ ক্লিয়ার

মেডিকেল মিরাকল ঘটানো সেই দম্পতি আইসিইউতে

আপত্তিকর মন্তব্য করায় টিআইবিকে বেক্সিমকো’র চিঠি

বার্সার জয়ে ফাতির ইতিহাস

পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

গোয়ালঘরে মা

বাস চাপায় ছাত্রলীগের তিন নেতা নিহত

শোভন ও রাব্বানীকে আইনের আওতায় আনার দাবি বিএনপি নেতা সোহেলের

রাব্বানীকে জিএস পদ থেকে অপসারণের আল্টিমেটাম

মিরপুরে গার্মেন্টস কর্মীদের সড়ক অবরোধ

গডফাদাররা নিরাপদে

কুকুরের মৃত্যুতে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর শোক, ফুলের মালা দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক রোহিঙ্গা নিহত