ক্যাসিনোয় প্রশাসনের কেউ জড়িত থাকলে ব্যবস্থা

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৪১
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ক্যাসিনো পরিচালনায় প্রশাসনের কেউ জড়িত থাকলে বিচারের মুখোমুখি করা হবে। গতকাল সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একথা বলেন। রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ক্যাসিনোতে অভিযান চালিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এসব ক্যাসিনো পরিচালনার বিষয়টি না জানা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যর্থতা কিনা, আর জানলে পুলিশের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হবে- জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে গোয়েন্দারাই ইনফরমেশন দিয়েছে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতেই অপারেশনগুলো হয়েছে। আমি তো সবসময় বলি এখানে যদি কোনো প্রশাসনের লোক জড়িত থাকে কিংবা তারা সহযোগিতা করেন, তাদের নিয়ন্ত্রণে এগুলো হয়েছে। আইন অনুযায়ী তিনিও বিচারের মুখোমুখি হবেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আজকে (গতকাল) দেখা করেছেন, নতুন করে কোনো নির্দেশনা দিয়েছেন কিনা- এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, আজকের সভাটি ছিল পূর্ব নির্ধারিত, সেই সভায় আমরা গিয়েছি।
ওনার (প্রধানমন্ত্রী) সবসময় ডিরেকশনটা ক্লিয়ার যে, কেউ কোনো ধরনের আইন বহির্ভূত কাজ করলে তাকে বিচারের মুখোমুখি হতেই হবে। আমরা সেটিই করছি, উনি যেভাবে ডিরেকশন দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, আজকে যেগুলো আমাদের চোখের সামনে আসছে, তথ্যগুলো সংগ্রহ করার পরই আমাদের এই অভিযান চলছে। দীর্ঘদিন থেকে ৬০টি ক্যাসিনো চলে আসছে, এতদিন পর অভিযান কেন- এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যখনই আমাদের কাছে খবর এসেছে কলাবাগান বন্ধ হয়ে গেছে। কারওয়ান বাজারে একটা উঠেছিল খবর যখন এসেছে তখনই বন্ধ হয়ে গেছে। আমাদের কাছে যেটিই খবর আসে, অনেক সময় আমাদের অনেক খবর আসে যেগুলো হয়তো তথ্য ভিত্তিক নয়, সেগুলো হয়তো উদ্দেশ্যমূলকভাবে খবর আসে। গিয়ে দেখি এগুলোর ভিত্তি নেই। যে সাতটি (অভিযান) আজকে হলো, যখনই তথ্য আসে আমরা তখনই অ্যাকশনে গেছি। ক্যাসিনোর বড় বড় মেশিন এবং বোর্ডগুলো বিমানবন্দরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে আসা কী সম্ভব- এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মেশিনগুলো কখনও এ রকম অবস্থায় আসে না। এগুলো ছোট ছোট পার্টসের মতো ভাগে ভাগে আসে, যেগুলো আপনার চোখেও পড়বে না। ডিক্লারেশন দিয়ে আনেনি বলেই তো তারা অপরাধী, সেজন্য তাদের বিচার হবে। সবগুলোর বিচার হবে, যারাই আইন ভঙ্গ করেছে। ক্যাসিনোর তথ্য কতদিন আগে জেনেছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, গোয়েন্দারা যখনই জানিয়েছেন তখনই জেনেছি। ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযানের পরিকল্পনা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযোগ নয়, এটা হলো অবৈধ কোনো ব্যবসার বিরুদ্ধে। সেটা ক্যাসিনো হোক কিংবা ক্লাব হোক কিংবা কোনো কিছু হোক, যা কিছু অবৈধভাবে স্থাপন করা হবে সেটার বিরুদ্ধে আমাদের ব্যবস্থা থাকবে।

গ্রেপ্তার হওয়া যুবলীগ নেতার টর্চার সেলের খবর শোনা যাচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা আমরা শুনেছি তবে এখনও সঠিক তথ্য পাইনি। এটা যদি হয়ে থাকে তাহলে সেটারও ব্যবস্থা হবে। ক্যাসিনোতে অভিযান নিয়ে যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর মন্তব্য সর্ম্পকে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা ওনার নিজস্ব মন্তব্য। এ সময় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন, আমিও দেখেছি। আমাদের নজরে যেগুলো আসছে আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। আরও যারা চিন্তা-ভাবনা করেছে আমরা অ্যাকশনে যাওয়ার পর বন্ধ করেছে, এটা আমরা জানতাম। ইদানীং আমরা শুনছিলাম এটা (ক্যাসিনো) নাকি  বেশ কয়েকটি ঢাকা শহরে হয়েছে, সেই তদন্ত ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতেই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রশাসন জানত না, না জানত- আমি সেখানে যাচ্ছি না। আমি বলছি প্রশাসন যখনই জানছে তখনই অভিযান শুরু করেছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

লক্ষ্মীপুরে দু’দল ডাকাতের ‘গোলাগুলি’তে একজন নিহত

যেভাবে ভারতের ওপর নির্ভরশীলতার ইতি টানতে চায় নেপাল

শায়েস্তাগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত

মুখোমুখি তুরস্ক ও সিরিয়ার সেনাবাহিনী?

দলবেঁধে বিদেশ ভ্রমণ

টাকার মান কমানোর উদ্যোগ যা ভাবছেন বিশ্লেষকরা

ছাত্ররাজনীতি বন্ধ হওয়া উচিত

দুদক চেয়ারম্যানের পদত্যাগ করা উচিত

গণভবনে আবরারের বাবা-মা, দ্রুত বিচারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

চার বড় ভাইকে নিয়ে সিলেটে নানা জল্পনা

ড. ইউনূসের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা স্থগিত

পরিবেশ রক্ষা করেই সুন্দরবন এলাকায় উন্নয়ন হচ্ছে- সালমান এফ রহমান

বাংলাদেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার অপরাধকরণ নিয়ে উদ্বেগ

শিশুর ওপর এ কেমন বর্বরতা!

ছাত্রলীগ থেকে অমিত সাহা বহিষ্কার

আবরারের ছবিতে ভিজেছে হাজারো চোখ