প্রতিক্রিয়া

অভিযান ইতিবাচক, এতদিন হয়নি কেন?

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৮
অনেকটা হঠাৎ করেই আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গড়ে ওঠা ক্লাবে ক্লাবে অভিযান শুরু করেছে। ক্লাবের অন্তরালে চলা জুয়া, অবৈধ অর্থ, মাদকসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তার করছে। এরই মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের অঙ্গসংগঠেনর দুই প্রভাবশালী নেতাকে ধরতে সক্ষম হয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। তাদের এই তৎপরতা বেশ প্রশংসনীয়ও। জনসাধারণ থেকে শুরু করে সর্বত্র এই অভিযান প্রশংসা কুড়াচ্ছে। তবে হঠাৎ করে শুরু হওয়া এ অভিযান কতটা অপরাধ দমনে ভূমিকা রাখবে সেটা স্পষ্ট নয় বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। হঠাৎ শুরু হওয়া এ অভিযান ইতিবাচক হলেও অপরাধ দমনের বিষয়টি সুস্পষ্ট নয় বলে মনে করেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন মালিক। মানবজমিনের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, নিঃসন্দেহে এটি একটি ভালো কাজ।
তবে স্বস্তি নেই। কারণ এসব বেআইনি কার্যকলাপ বহুদিন ধরে বহু মানুষ জানতো। হঠাৎ করে এ অভিযান কতটা অপরাধ দমনের সেটা স্পষ্ট নয়। তবে অভিযান চলছে, চলুক। এটাই প্রত্যাশা। চলমান অভিযান উৎসাহব্যাঞ্জক ও জনমনে প্রত্যাশার সৃষ্টি করবে বলে মনে করেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। তবে এর ফলে দুর্নীতির নিয়ন্ত্রণ কতটুকু কার্যকর ভূমিকা রাখবে তা নির্ভর করবে এটি কতটুকু সর্বব্যাপী ও টেকসই হয় তার ওপর। তিনি বলেন, দুর্নীতির অভিযোগে কিছু সংখ্যক ছাত্র ও যুবনেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রেক্ষিতে যে লোমহর্ষক চিত্র সামনে এসেছে, তা হিমশৈলের চূড়ামাত্র। মূলত রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ও রাজনৈতিক পরিচয়ে দুর্নীতির শেকড় আরো গভীরতর ও ব্যাপকতর। দুর্নীতির যে ভয়াবহ চিত্র উঠে এসেছে তা হতাশাব্যঞ্জক হলেও অবাক করার মতো কিছু নয় বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ক্ষমতায় কোন দল অধিষ্ঠিত তা নির্বিশেষে দেশে দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা ও ক্ষমতার অবস্থানকে জনস্বার্থের জলাঞ্জলির বিনিময়ে নিজেদের সম্পদ বিকাশের লাইসেন্স হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। এটা খুবই স্বাভাবিক ছিলো যে, এর ফলে দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার দেশকে এই পর্যায়ে নিয়ে যাবে। রাজনীতি, ব্যবসা, প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার একাংশের দুর্নীতিবান্ধব যোগসাজশ সমাজের সকল পর্যায়ে দুর্নীতির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ করেছে। এখন জরুরি, কাউকে ছাড় না দেয়া, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষভাবে যে-কোনো পর্যায়ের অবস্থান ও পরিচয়ে প্রভাবান্বিত না হয়ে এ ধরনের অনিয়মে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় আনা। ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, সামপ্রতিক অভিযানের ফলে যে উৎকণ্ঠাজনক চিত্র সামনে এসেছে, তা বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়। চলমান এ অভিযানের ব্যাপ্তি ও প্রসার অন্যান্য খাত এবং পর্যায়ে বিস্তৃত করতে পারলে একই চিত্র উদঘাটিত হবে। রাজনৈতিক সংশ্রবপ্রসূত দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার শুধু রাজধানী ও এর আশপাশের যুব ও ছাত্র নেতৃবৃন্দের একাংশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, বরং বিস্তৃত দেশব্যাপী সকল পর্যায়ে, এবং বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিসহ মূল রাজনৈতিক দল ও দলের অন্যান্য ভ্রাতৃপ্রতিম অঙ্গসংগঠনের একাংশে। প্রকৃতপক্ষে, ছাত্র ও যুব সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এক্ষেত্রে তাদের মূল দলের অগ্রজদেরই অনুসরণ করে থাকে, যারা এক্ষেত্রে তাদের এই চর্চার রোল মডেল।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান এ বিষয়ে বলেন, পুলিশের নাকের ডগায় ক্যাসিনোগুলো চলছিল। অথচ তারা এসব খুঁজে পায়নি। তাহলে তারা এতোদিন কি করছিল? তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি সেক্টরে যেখানে দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, অন্যায়-অবিচারে ভরে গেছে সেখানে রাজনৈতিক দলের অঙ্গ-সংগঠনের কয়েকজনের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে এসব বন্ধ করা যাবে না এধরনের অভিযান সাময়িক। দেশ যেহেতু চালায় রাজনৈতিক দল, সেহেতু তাদের দলের ভেতরেই সংস্কার করতে হবে। দলের ভেতরে দুর্নীতিবাজ, দখলদারী, লুটেরাদের চিহ্নিত করতে হবে। দলের ভিতরে সংস্কার হলে অঙ্গসংগঠনগুলোরও সংস্কার হবে। আর দলের ভেতরে দুর্নীতবাজ রেখে অঙ্গ সংগঠনগুলোর সংস্কার করে কোন লাভ নেই। আজকে শোনা যাচ্ছে এসব অবৈধ ব্যবসার পিছনে রাঘববোয়ালদের নাম বেরিয়ে আসছে। এখন দেখা যাক এসব রাঘববোয়ালরা শেষ পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে পৌঁছায় কিনা।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

tawab

২০১৯-০৯-২৫ ০৯:০২:৫২

We all hope that the Prime Minister will succeed.

মোঃ কামরুল হাসান

২০১৯-০৯-২৩ ০৭:০৪:১১

Later is better than never!!

Kazi

২০১৯-০৯-২২ ২১:৩৪:২১

লোম বাচতে কম্বল বিনাশ । বাংলাদেশে দুর্নীতি ও অরাজকতা এত পুরাতন কাল থেকে শুরু এখন তা ব্যাপক ভাবে বিস্তৃত । তাই এক যুগ অভিযান চললেও সবাইকে আইনের আওতায় আনা কঠিন হবে। তবে আশার কথা অভিযান শুরু হয়েছে। সবাই শুরু করার জন্য প্রশংসাও করছেন। আমরা লক্ষ্য করছি - কিন্তু মির্জা ফখরুলের অবিবেক সমালোচনা এই অভিযানের বিরুদ্ধে উস্কানি মূলক । অথচ পত্রিকান্তরে প্রকাশ ক্যাসিনো ব্যবসা তাদের সরকারের আমলে সূত্রপাত করেছিলেন। কেউ সাহস না করলেও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা অত্যন্ত সাহসী ভূমিকা নিয়েছেন যা প্রশংসনীয় উদ্যোগ ।

আপনার মতামত দিন

অসমের এনআরসির প্রধানকে অপসারণের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

আমিরাতে গরম চা’য়ে দগ্ধ বাংলাদেশী শিশুর মৃত্যু

সরফরাজ হারালেন টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির অধিনায়কত্ব

খালেদা জিয়া ছাড়া নিথর জাতীয়তাবাদী শক্তি: গয়েশ্বর

দ্বিতীয়বার যান্ত্রিক ত্রুটিতে মেয়র আরিফের ফ্লাইট

‘বিজিবি-বিএসএফ গুলিবিনিময়ের ঘটনা ভুল বোঝাবুঝি থেকে’

‘সমাজের কোথাও আমাদের সন্তানরা নিরাপদ নয়’

বিজিবির হাতে আটক ভারতীয় জেলে কারাগারে

মোটরসাইকেল থেকে পড়ে আহত ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট

আসামে জেএমবি ক্যাডার গ্রেপ্তার

শাহ আমনতে সাড়ে ৭ কোটি টাকার সোনা জব্দ, বিমানযাত্রী আটক

সিরিয়ায় ৫ দিন হামলা স্থগিতে রাজি হয়েছে তুরস্ক: পেন্স

যুবলীগ চেয়ারম্যানের গণভবনে যাওয়া নিয়ে যা বললেন কাদের

আশুলিয়া ধর্ষণের শিকার আট বছরের শিশু

কাশ্মীরে জঙ্গি হামলা ও পুলিশের গুলিতে নিহত ৫

সিলেটের মেয়র আরিফুলের বিরুদ্ধে ঢাকায় মামলা