সম্রাট হাসপাতালে, টাকার সন্ধানে গোয়েন্দারা

শেষের পাতা

রুদ্র মিজান | ৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৪০
টাকা আর টাকা। প্রতিদিনই ঢাকার অপরাধ জগতের বাদশা ইসমাইল হোসেন চৌধুরীর দরবারে জমা হতো বিপুল টাকা। বিভিন্ন পর্যায়ের হোতা, কর্তাদের মধ্যে ভাগের পরে কোটি কোটি টাকা থাকতো নিজের কাছে। সম্রাটের সেই টাকা কোথায়, সন্ধান করছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে সম্রাটের ঘনিষ্ঠদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। প্রাপ্ত তথ্য যাচাই-বাছাই করছেন গোয়েন্দারা। সিঙ্গাপুর ও অস্ট্রেলিয়াতে টাকা পাঠানোর তথ্য পাওয়া গেছে। বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠাতেন সম্রাট।
সিঙ্গাপুরেই বেশি আসা-যাওয়া ছিল তার। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়াতে যোগাযোগ ছিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও সম্রাটের ঘনিষ্ঠ সহযোগী মমিনুল হক সাঈদের। গোয়েন্দাদের ধারণা এই দুটি দেশে টাকা থাকতে পারে তার।

সূত্রমতে, ক্যাসিনো, মাদক, অবৈধ মার্কেট-দোকান থেকে প্রতিদিনই  প্রায় তিন কোটি টাকা উপার্জন হতো সম্রাটের। মাসে প্রায় তিন শ’ কোটি টাকা। ভাগ-বাটোয়ারা শেষেও বিপুল টাকা থাকতো তার। এই বিপুল টাকার কোনো সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি। সম্রাটের কাকরাইলের কার্যালয়ে টাকা লেনদেন সংক্রান্ত একটা নথি মিললেও টাকা কোথায় রাখতেন তার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। দেশের বাইরে গেলেই সম্রাটের সঙ্গে থাকতেন যুবলীগ নেতা মমিনুল হক সাঈদ ও এনামুল হক আরমান। ক্যাসিনোতে খেলা, নারী সঙ্গ ও মদের আসরে আরমানকে পছন্দ করেন সম্রাট। দীর্ঘদিন একসঙ্গে রাজনীতি করার কারণেই সম্রাটের ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠেছিলেন আরমান। কাকরাইলের অফিসে ও পাশের একটি আবাসিক হোটেলে পার্টি আয়োজনের দায়িত্বে থাকতেন তিনি। অন্যদিকে, খালেদ ও সাঈদ ছিলেন সম্রাটের টাকা সংগ্রহ ও ভাগ-বাটোয়ারার দায়িত্বে। সম্রাটের পক্ষে এসবের হিসাব রাখতেন যুবলীগ দক্ষিণের দপ্তর সম্পাদক এমদাদুল হক।

প্রতি মাসে একাধিকবার সিঙ্গাপুরে যেতেন সম্রাট। সিঙ্গাপুরের অভিজাত মেরিনা বে স্যান্টস ক্যাসিনোতে জুয়া খেলতেন। সিঙ্গাপুরে তার এক গার্লফ্রেন্ডও রয়েছে। গ্রেপ্তার হওয়ার কয়েক মাস আগেও সিঙ্গাপুরে গিয়ে গার্লফ্রেন্ডকে বিলাস বহুল একটি গাড়ি উপহার দেন সম্রাট। সম্রাটের আরেক ঘনিষ্ঠ সহযোগী সংসদ সদস্য নুরুনন্নবী চৌধুরী শাওন। দেশের বাইরে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে সম্রাটের সঙ্গে শাওন, সাঈদের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে।

গ্রেপ্তারের পর এসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলেও সম্রাটের কাছ থেকে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। টাকার প্রশ্ন বারবারই কৌশলে এড়িয়ে গেছেন সম্রাট।

কোন দেশে কত টাকা রেখেছেন এ বিষয়ে কোনো তথ্য দেননি তিনি। বরং জানিয়েছেন, তার কাছে টাকা নেই। যুবলীগের ঢাকা দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক  খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন জানিয়ে দাবি করেছেন খালেদ অনেক মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন। কিন্তু সত্য কী, এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে নিরব ছিলেন তিনি।
র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, গ্রেপ্তারের পর সারাদিন অভিযান নিয়ে ব্যস্ত থাকায় সম্রাটকে সেভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করার সুযোগ হয়নি। সম্রাটকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই এসব বিষয়ে তথ্য পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। গোয়েন্দাদের ধারণা সাঈদ, এমদাদ গ্রেপ্তার হলে আরও অনেক তথ্য জানা যাবে। ইতিমধ্যে ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত সে হিসাব পাওয়া যায়নি।

গ্রেপ্তারের পর রোববার সন্ধ্যার পরেই কারাগারে পাঠানো হয়েছে সম্রাটকে। সোমবার তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে  পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে। পৃথক দুই মামলায় তার ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ। এ বিষয়ে রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুল ইসলাম জানান, অস্ত্র আইনে দায়েরকৃত মামলাটি তদন্ত করছেন পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়েরকৃত মামলাটি তদন্ত করছেন পরিদর্শক মাসুদুল হক ভূঁইয়া। দুটি মামলায় রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। বুধবার সম্রাটের উপস্থিতিতে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদনসহ রিমান্ডের শুনানি দিন ধার্য্য করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

?এদিকে, জেলহাজতে অসুস্থ হলে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট গতকাল সকালে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি করা হয়। সকাল সাড়ে ৭টায় সম্রাটকে কারাগার থেকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হয়। এরপর ঢামেক চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. আফজালুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, সম্রাটের অবস্থা স্থিতিশীল। তার চিকিৎসার জন্য সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। তাকে ২৪ ঘণ্টার জন্য অবজারভেশনে রাখতে হচ্ছে। কারণ যেকোনো হৃদরোগের রোগী এলে অবজারভেশনে (পর্যবেক্ষণে) রাখা হয়।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kazi

২০১৯-১০-০৮ ২১:০৮:৫৮

গোয়েন্দারা টাকার খুঁজছে। আর আমি হিসাব করে দেখলাম বাংলাদেশ কতো ধনী । শামীম ১৫০০+৪০০ কোটি শুদু দুই প্রকৌশলীকে বখশিশ দিয়েছে। তাছাড়াও ছোটখাট অনেকেই বখশিশ পেয়েছেন। সে কতো কোটি টাকা মেরেছে। এই জুয়ারিরা দৈনিক কোটি টাকা বখশিশ বাদে। ব্যাংক লুটপাট হয়েছে। তারপরও দেশ রকেট গতিতে আগাইতেছে। চিন্তা করেন বাংলাদেশ কতো ধনী দেশ। এসব মেরেও অগ্রগতি রোধ করতে পারে নি।

Kazi

২০১৯-১০-০৮ ২০:৩৫:৫৯

ইলেকট্রিক শক লাগবে না ? হার্টের রোগীর তো শক লাগে শুনেছি।

আপনার মতামত দিন

আবরার ইস্যুতে বিবৃতি দেয়ায় জাতিসংঘ দূতকে তলব

বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা আজ কাল থেকে ফের আন্দোলন

পুলিশের বাধায় ঐক্যফ্রন্টের র‌্যালি পণ্ড

সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমছে ব্যাংক খাতে সরকারের ঋণ বাড়ছে

মাহিমের চোখের সামনেই মাকে কেড়ে নিল ঘাতক ভ্যান

রাজীবের দুই ভাইকে ১০ লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ

শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে : কাদের

এবছর ভারতের চেয়ে বেশি দ্রুত বাড়বে বাংলাদেশের অর্থনীতি: বিশ্বব্যাংক

‘আবরার তখন মাগো মাগো বলে চিৎকার করছিলো’

মেজর হাফিজের জামিন

দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ রোল মডেল

পুরো ক্যাম্প নিয়ন্ত্রণ নয়, কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করবে সেনাবাহিনী

আমার ছেলে নির্দোষ

আবরারের ভাইকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত: আইনমন্ত্রী

‘নকল করে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হয়ে কোনো লাভ হবে না’

ক্যানসারে এক বছরে দেড় লাখের বেশি আক্রান্ত মৃত্যু এক লাখ ৮ হাজার