মানসিক চাপে ‘ব্রেকিং পয়েন্ট’-এ পড়ে ৫০ শতাংশ শ্রমিক

শরীর ও মন

অনলাইন ডেস্ক | ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার
সকল ধরনের কর্মক্ষেত্রে প্রায় অর্ধেক কর্মী মানসিক চাপ বৃদ্ধির কারণে ‘ব্রেকিং পয়েন্ট’ এ পড়ে। মনোবিজ্ঞানে ‘ব্রেকিং পয়েন্ট’ হল মানসিক চাপের সেই মুহুর্ত যেখানে কোনও ব্যক্তি ভেঙে পড়ে বা পরিস্থিতি সমালোচনামূলক হয়ে ওঠে।

২০০০ পেশাদারের মধ্যে চালানো এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা প্রাপ্তবয়স্ক পরিশ্রমী তাদের কার্যদিবসের প্রায় এক তৃতীয়াংশ সময় জোর বা চাপ অনুভব করে। তাদের কাজের মুখে বাধা হওয়া এই মানসিক চাপের একমাত্র কারণ হল- প্রতি সপ্তাহের পাঁচ ঘণ্টা ঘুম কম হওয়া।

কাজের শেষ মূহুর্তে আরও ঘণ্টাখানেক ই-মেইল চেক, হাতের কাজটি শেষ করা, বক্তৃতা বা প্রেজেন্টেশন প্রস্তুত করা, অফিসের বস কর্তৃক কর্মীর কাছে বেশি বেশি চাহিদা ইত্যাদি কর্মক্ষেত্রে চাপের সবচেয়ে বড় কারণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। আরও চাপ সৃষ্টির কারণ হল- সপ্তাহে কর্মচারিদের ৩১ মিনিটের কাজের জন্য মালিকদের আরও ২ ঘন্টা ৪৫ মিনিট অভিযোগ করা।

দাতব্য সংস্থা সিএবিএ’র মুখপাত্র মনোবিজ্ঞানী রিচার্ড জেনকিনস বলেছেন, প্রত্যেকেই চাপ অনুভব করে। তবে একটি মাত্রার চাপ এলে ভালো, এতে তারা ভালো কাজ করতে পারে। তবে অত্যাধিক চাপ নিয়ন্ত্রণহীন স্তরে বেড়ে গেলে কর্মীদের চাপ আরও বাড়ে। শ্রমজীবী মানুষকে ‘ব্রকিং পয়েন্ট’ এড়াতে কীভাবে তাদের পরিচালনা করতে হবে তা জানতে হবে।

রিচার্ড জেনকিনস বলেন, প্রত্যেকের একটি কৌশল থাকবে যা তাদের চাপটি মুক্ত করতে সহায়তা করবে। এক্ষেত্রে জিমের মতো শারীরিক ক্রিয়াকলাপ অথবা শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়ামের মতো কিছু জিনিসও সহায়তা করতে পারে।
দুর্ভাগ্যক্রমে, অনেক ক্ষেত্রে আমরা আমাদের জীবনে এটিকে বিরক্তিকর মনে করি, অথচ তা চাপ মুক্ত করতে এবং চাপ কমাতে সহায়তা করতে পারে। তাই আপনার চাপ কমানোর জন্য উপায়গুলি খুঁজে বের করা অপরিহার্য, তবে কেবলমাত্র লক্ষণগুলির চিকিৎসার পরিবর্তে আগে চাপের উৎসটি জানতে হবে।

সমীক্ষায় ১০ জনের মধ্যে সাতজন প্রাপ্তবয়স্করা তাদের সহকর্মী, অংশীদার, পরিবারের সদস্য বা বন্ধুদের সম্পর্কে অনুসন্ধান করেছে। যদিও যারা কাজের চাপে অনুভূত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৪৬ শতাংশ এই বিষয়ে কিছু বলেনি। তারা চান সমস্যাটি নিজে থেকে দূর করবে। যারা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তাদের মধ্যে ৩৮ শতাংশ তাদের পরিচালককে এ বিষয়ে বলেছিলেন, আর ৫১ শতাংশই মানসিক চাপ কমাতে সফরে বের হয়েছেন।

সমীক্ষায় দেখা যায়, যখন চাপ খুব বেশি হয়ে যায়, তখন ৩১ শতাংশ মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়। আর ১৪ শতাংশ তাদের নিজেদের বাচ্চাদের অফিস ফাঁকির অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করেছেন। তবে তাদের মধ্যে যদি চাপের মাত্রা খুব বেশি হয়ে যায়, তবে ১০ বা ৬ জন তাদের কর্মক্ষেত্র সম্পর্কে অভিযোগ করে বেরোনোর পরে ভাল বোধ করে।

বৃটিশরা সপ্তাহে সম্ভবত সোমবার কর্মক্ষেত্রে বেশি আর বৃহস্পতিবার সর্বনিম্ন চাপের দিন হিসেবে দেখে।

জরিপে অংশ নেয়া প্রায় ৫ জনের মধ্যে তিন জন বিরতিতে কী মিস করবেন তা ভেবে ছুটি কাটাতে যাওয়ার সময় চাপে পড়েন।

সিএবিএ’র মুখপাত্র বলেন, যদি কর্মক্ষেত্রের অত্যাধিক চাপ থাকে, যে চাপ এমন একটি পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, আপনি কাজ করতে যেতে অক্ষম বোধ করেন, তবে এটি পরিবর্তন করার সময় এসেছে। প্রথমত, সবচেয়ে কঠিন পদক্ষেপটি হলো- কারও সঙ্গে এমন হলে, এ সম্পর্কে কথা বলতে হবে, হোক সে সহকর্মী, ব্যবস্থাপক বা পরিবারের কোনও সদস্য। কখনও কখনও সবকিছু মেনে নেয়াটা আপনার চাপ বাড়ানোর উৎস হতে পারে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মর্গে ছোট্ট ছোয়ার লাশ রেখে ঢামেকে বাবা-মা

হবিগঞ্জের ৭ জন নিহত

সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছাত্রদল নেতার মৃত্যু

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১২ আসামীকে কুমিল্লা কারাগারে স্থানান্তর

তূর্ণা এক্সপ্রেসের চালক-গার্ডসহ ৩ জন সাময়িক বরখাস্ত

নওয়াজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্রীয় সরকার

একবছরে ৫ বছরের কম বয়সী ১২০০০ শিশুর মৃত্যু

রাঙ্গা অনুতপ্ত, বক্তব্য প্রত্যাহার

সৌদি আরবে নারীত্ববাদ, সমকামিতা, নাস্তিক্যবাদ উগ্রপন্থিদের ধারনা

প্রতিবন্ধীকে মারধর করা সেই ছাত্রলীগ কর্মীকে শোকজ

ঘুরতে যাবার সময় লাশ হলেন রুবেল, আহত মুন্না ঢামেকে

নিহতদের প্রত্যেক পরিবার পাবে ১ লাখ টাকা: রেলমন্ত্রী

বুলবুলের পর আসছে নাকরি

৩ তদন্ত কমিটি গঠন

দূর্ঘটনায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিতেও সরকারে ভ্রুক্ষেপ নেই- মির্জা ফখরুল