একসঙ্গে এত্ত কফিন, মমি!

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ২০ অক্টোবর ২০১৯, রোববার

এক শতাব্দীর মধ্যে একসঙ্গে সবচেয়ে বেশি কাঠের কফিন উদ্ধার করেছে মিশর। একই স্থানে মাটির মাত্র তিন ফুট গভীরে পাওয়া যায় এমন ৩০টি কফিন। তার ভিতর অক্ষত অবস্থায় আছে নারী, পুরুষ ও শিশুদের মমি। কয়েকদিন আগে এগুলো উদ্ধার করা হলেও আনুষ্ঠানিকভাবে তা প্রকাশ করা হয় শনিবার। দেশটির লুক্সোর শহরের দক্ষিণ থেকে আবিষ্কার করা হয়েছে এসব কফিন। তা এখনও অক্ষত অবস্থায় আছে। এমন কি এর গায়ে যে অলঙ্করণ রয়েছে, যে নকশা আঁকা রয়েছে, তা বিন্দুমাত্র বিলীন হয় নি। এক শতাব্দীর মধ্যে একসঙ্গে এত কফিন বা মমি উদ্ধারের ঘটনা এটাই প্রথম।
মিশরের প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ক মন্ত্রণালয় শনিবার একটি বিবৃতিতে বলেছে, লুক্সোরের পশ্চিম তীরে আল আসাসিফ সমাধিক্ষেত্রে একসঙ্গে পাওয়া গেছে এসব কফিন। ওই এলাকাটি ঐতিহাসিক নিল নদের পশ্চিম তীরে।

একসঙ্গে এত কফিন ও মমি পাওয়ার এমন ঘটনা বিরল। রিপোর্টে বলা হয়েছে, এসব কফিন দুটি সারিতে সাজানো ছিল। যেহেতু একই স্থানে পাশাপাশি রাখা ছিল এগুলো তাই ধারণা করা হচ্ছে এটা কোনো উচ্চ পর্যায়ের ধর্মগুরুর পরিবারের সদস্যদের কফিন বা মমি হতে পারে। মিশরের প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ক সুপ্রিম কাউন্সিলের প্রধান মোস্তফা আল ওয়াজিরি বলেছেন, মিশরের প্রত্নতত্ত্ববিদ, রক্ষণশীল ও কর্মীদের সমন্বয়ে উৎসর্গিত ব্যক্তিদের একান্ত প্রচেষ্টায় আসাসিফ এলাকায় প্রথম এমন উদঘাটন হলো। এসব কফিনের গায়ে যে তারিখের উল্লেখ আছে তাতে তা ২২তম ডাইনেস্টির। এই ডাইনেস্টির সূচনা হয়েছিল খ্রিস্টপূর্ব ১০ম শতাব্দীতে। বহু বছরের পুরনো হলেও এখনও এসব কফিনে সাপ, পাখি, পদ্মফুল, হায়ারোগ্লিফিকসের কালো, সবুজ, লাল ও হলুদ রঙের ছবি একেবারে চকচক করছে।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

ইকোনমিস্টের প্রতিবেদন

আইসিজের নির্দেশ সুচির জন্য তিরস্কার

২৪ জানুয়ারি ২০২০

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের রিপোর্ট

যুদ্ধাপরাধের কথা প্রথমবার স্বীকার করেছে মিয়ানমার

২৩ জানুয়ারি ২০২০

সব চোখ আজ আইসিজে’তে

২৩ জানুয়ারি ২০২০





বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



জেগে উঠেছে পুরনো প্রেম

পালিয়েছেন বরের পিতা ও কনের মা