পাবনায় মিশু হত্যার একবছরেও গ্রেপ্তার হয়নি প্রধান আসামি

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, পাবনা থেকে | ৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫৮
পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের রসায়ন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের মেধাবী ছাত্র এসএম মিশকাত আহমেদ মিশু হত্যার এক বছর পেরিয়ে গেলেও এই হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। গত বছরের ৭ই নভেম্বর রাতে পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ মাঠে দুর্বৃত্তরা উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। এদিন সন্ধ্যায় মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে দুর্বৃত্তরা এই ঘটনা ঘটায়। মিশু পাবনা কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম মোস্তফার ছেলে। পরিবারের অভিযোগ, মিশুকে হত্যা করা হয়েছে পূর্বপরিকল্পিতভাবে। প্রথমে মিশু হত্যা মামলাটি পাবনা সদর থানা পুলিশ তদন্ত করে মূল আসামিদের বাদ দিয়ে দায়সারা চার্জশিট দাখিল করে। কিন্তু পরিবারের পক্ষ থেকে আদালতে জমা দেয়া চার্জশিটের ওপর নারাজি পিটিশন দায়ের করা হয়। পরে আদালত অধিকতর তদন্ত ও প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণে মামলাটি পিবিআই’র ওপর ন্যস্ত করে।
পরিবারের অভিযোগ মিশু হত্যার এক বছর পেরিয়ে গেলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে প্রধান আসামি।

নিহত মিশুর বাবা সৈয়দ গোলাম মোস্তফা জানান, অজ্ঞাতদের আসামি করে পাবনা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। পুলিশ তদন্ত করে ৬ জনকে এই হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পায়। এই মামলার এক আসামি ইয়াছিন আলী রাহাতকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আদালতের ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয় সে। তার দেয়া স্বীকারোক্তিতে এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের এক প্রভাবশালী নেতা এবং তার সহযোগী তসলিম হোসেন সেতু সংশ্লিষ্ট ছিল বলে জানায়। তিনি অভিযোগ করেন, পুলিশ অজ্ঞাত কারণে তদন্তে গ্রেপ্তার হওয়া রাহাতের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি মোতাবেক তদন্ত প্রতিবেদন না দিয়ে আদালতে দাখিলকৃত চার্জশিট থেকে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের এক প্রভাবশালী নেতা ও তার সহযোগী তসলিম হোসেন সেতুর নাম বাদ দিয়ে দেয়। তিনি বলেন, দাখিলকৃত ওই চার্জশিটে আমি নারাজি পিটিশন দায়ের করি। আদালত চার্জশিট দাখিলের এক মাস পর মামলাটি অধিকতর তদন্তের স্বার্থে পাবনাস্থ পিবিআইয়ের ওপর ন্যস্ত করা হয়।

নিহত মিশকাতের মা লুৎফা শিরিন লুনা আবেগআপ্লুত হয়ে বলেন, মিশু আর ফিরবে না। তবে আমার মিশুকে যারা মেরেছে। সেই সব খুনিদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক এটাই আমার চাওয়া। প্রকৃত আসামিদের যেন মামলা থেকে বাদ দেয়া না হয়। পুলিশ প্রশাসনের কাছে এটা আমার জোর দাবি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পাবনাস্থ পিবিআই কার্যালয়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সবুজ বলেন, মামলার অগ্রগতি যথেষ্ট সন্তোষজনক। সমস্ত টেকনিক্যাল বিষয়গুলো এবং পূর্ববর্তী তদন্ত প্রতিবেদন, জবানবন্দি সকল বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিয়েই এই মামলার তদন্ত কার্যক্রম চলছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যেই এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হবে। এসআই সবুজ আরো বলেন, মামলার অন্যতম এক আসামি পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি যত বড় ক্ষমতাধরই হোক না কেন তাকে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মোদির কাছে রাজনৈতিক আশ্রয় চাইলেন পাকিস্তানি নেতা

ইন্দোরে গোলাপি বলে টাইগারদের অনুশীলন (ভিডিও)

২৫ নভেম্বর ফুল কোর্টে খালেদার আপিল শুনানি

লতিফ সিদ্দিকীর মুক্তিতে বাধা নেই

নাটকীয়তা শেষে অনুমতি পেলেন নওয়াজ শরীফ

গোটাবাইয়া রাজাপাকসেই হচ্ছেন শ্রীলঙ্কার নতুন প্রেসিডেন্ট

পিয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা কাদের সিদ্দিকীর

লুইজিয়ানায় ডেমোক্রেট গভর্নর নির্বাচিত, ট্রাম্পের প্রতি বড় আঘাত

পিয়াজের বিকল্প হতে পারে চিভ

তাড়াশে বৃদ্ধকে কুপিয়ে হত্যা

লঞ্চের ধাক্কায় বালুবাহী জাহাজ ডুবি, ৩ শ্রমিক নিখোঁজ

প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপির চিঠি

ডেমোক্রেটদের সতর্ক করলেন ওবামা

সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধাদের বয়সসীমা ৬০

দুদকের মামলায় ৬ দিনের রিমান্ডে সম্রাট

বিএনপি নেতা এখন আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী