তোপের মুখে ডিসি-এসপি

পঞ্চগড়ে বাসচাপায় নিহত ৭

দেশ বিদেশ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি | ৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:১৬
পঞ্চগড়ে বাসচাপায় ইজিবাইকের চালকসহ ৭ জন নিহত হয়েছেন। গতকাল বেলা দেড়টার দিকে পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কের মাগুড়মারী চৌরাস্তার পাশে আমতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর ভজনপুর হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধারের সময় স্থানীয় বিক্ষুব্ধ লোকজন তাদের ধাওয়াসহ হামলার চেষ্টা করে। যানবাহনে চাঁদাবাজি নিয়ে লোকজন তাদের প্রতি ক্ষুব্ধ ছিল বলে জানা গেছে। পরে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তারা বিক্ষুব্ধ জনতার রোষানলে পড়েন। এ সময় অনেক লোকজনের মধ্যে কেউ কেউ ইটপাটকেল মারা শুরু করলে তারা নিরাপদ স্থানে সরে যান। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঘটনাস্থল ও আশপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এই ঘটনায় বিক্ষুব্ধ লোকজন প্রায় তিন ঘণ্টা পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বিক্ষুব্ধ লোকজন অবরোধ তুলে নিলে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। দুর্ঘটনার পরই বাসের চালকসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। হাইওয়ে পুলিশ বাসটি আটক করেছে।
নিহতরা হলেন তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের মাঝিপাড়া এলাকার ডাকবদলী গ্রামের মুজিবুর রহমানের ছেলে লাবু (২৭) এবং তার নব বিবাহিত স্ত্রী মুক্তি (১৮), পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেরা ইউনিয়নের চেকরমারী গ্রামের জয়নাল হকের ছেলে অটোচালক রফিক (২৮), একই উপজেলার অমরখানা ইউনিয়নের সুরিভিটা বদিনাজোত গ্রামের বশির উদ্দিনের ছেলে আকবর আলী (৭০) ও তার স্ত্রী নুরিমা বেগম (৫৭), সাতমেরা ইউনিয়নের রায়পাড়া গ্রামের মফিজউদ্দিনের ছেলে মাকুদ হোসেন (৪৩) এবং একই ইউনিয়নের সাতমেরা ইউনিয়নের সাহেবীজোত গ্রামের আকবর আলীর স্ত্রী নার্গিস (৪০)। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, গতকাল বেলা দেড়টার দিকে কাজী এন্টারপ্রাইজের একটি যাত্রীবাহী বাস পঞ্চগড় থেকে তেঁতুলিয়া যাচ্ছিল। বাসটি পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেরা ইউনিয়নের আমতলা স্থানে পৌঁছলে একটি ছাগলকে বাঁচাতে গিয়ে ভজনপুর থেকে জগদলের দিকে আসা একটি ইজিবাইককে চাপা দেয়। এ সময় বাসের নিচে আটকে থাকা ইজিবাইকটিকে প্রায় একশ’ গজ টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় ৫ জন। আহত দুইজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারাও মারা যায়। সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জন নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ  ইউসুফ আলী বলেন, দুর্ঘটনার পরই বিক্ষুব্ধ লোকজন মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছিল। জেলা প্রশাসক মহোদয়সহ আমি সেখানে গিয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে আলোচনা করার পর তারা আশ্বস্ত হয়ে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়। এর আগে কেউ কেউ ইটপাটকেল মারার চেষ্টা করে। ঘটনার পরই চালক পালিয়ে যাওয়ার কারণে তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে বাসটি আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রাষ্ট্রীয় পুরস্কারের অর্থের পরিমাণ বাড়ল

গোলাপি বলে জেতার জন্য খেলবেন মুমিনুলরা

শিক্ষার্থীদের সকল দাবি মেনে নেবার আশ্বাস

এপস্টেইন কেলেঙ্কারিতে দায়িত্ব ছাড়লেন প্রিন্স অ্যান্ড্রু

সমাপনী পরীক্ষায় শিশুদের বহিষ্কার কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট

হল খোলা রাখার দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত

৫ বছর পর ২০০০ কিলোমিটার দূরে পাওয়া গেলো হারানো বিড়াল

প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে ৬৪ জেলায় রদবদল

গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

বাণিজ্যযুদ্ধের সমাধান না হলে যুক্তরাষ্ট্র-চীন সশস্ত্র যুদ্ধে লিপ্ত হতে পারে: কিসিঞ্জার

পরিবহন শ্রমিক ধর্মঘট চলছেই

আমাকে পছন্দ না হলে প্রকাশ্যে বলুন: ড. মাহাথির

‘সন্তানরা মাঠে নামলে পিঠের চামড়া থাকবে না’

দুর্ভিক্ষের পদধ্বনি শুনতে পাচ্ছি: মওদুদ

উত্তর প্রদেশে বিদ্রোহের মুখে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী!

পরিবহন শ্রমিকদের আশ্বস্ত করলেন ওবায়দুল কাদের