পঞ্চগড়ে মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধার আবেদন

দেশ বিদেশ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি | ২৩ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:০৭
আরো একজন মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়ে লিখিতভাবে আবেদন করেছেন। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, যেখানে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের দাপটে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা জিম্মি সেখানে মৃত্যুর পর একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার দাফন-কাফনে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধারা অংশ নেবেন- এটা কিছুতেই মেনে নেয়া যায় না। তাই মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রত্যাখ্যান করছি। পঞ্চগড় দেবীগঞ্জ উপজেলা সদরের মুন্সীপাড়া এলাকার আবুল খায়ের ভূঁইয়া নামের ওই মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছেন। ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হয়েও মুক্তিযোদ্ধা ভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা ভোগ করাসহ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের দাপটে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের অবমূল্যায়ন করার জন্য তিনি রাষ্ট্রীয় সম্মান না নেয়ার সিদ্ধান্তের কথা আবেদনে উল্লেখ করে বলেন, তাকে যেন পারিবারিক ও সামাজিকভাবে দাফন করা হয়। এই আবেদনের অনুলিপি প্রধানমন্ত্রী, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর পাঠানো হয়েছে। তিনি লিখিত আবেদনে বলেন, দেবীগঞ্জ উপজেলায় ১৬৪ জন মুক্তিযোদ্ধা আছেন। এর মধ্যে ৪৩ জনই ভুয়া।
২০১২ সাল থেকে এই ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী, দুর্নীতি দমন কমিশন, মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট আবেদন করেও কোনো প্রতিকার পাননি। মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের ভূঁইয়া মুক্তিযুদ্ধে ৬ নং সেক্টরের অধীনে একটি কোম্পানির কমান্ডার ছিলেন। ১৯৭১ সালের ৯ই ডিসেম্বর তার নেতৃত্বে সম্মুখযুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীকে দেবীগঞ্জ থেকে বিতাড়িত করে দেবীগঞ্জ মুক্ত করা হয়। ওই দিন বিকাল চারটায় আনসার অফিসের সামনে মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় জনসাধারণের উপস্থিতিতে ৩১ বার তোপধ্বনির পর তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। বহু আন্দোলন সগ্রামের পর তৎকালীন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমানের সহযোগিতায় ২০০৯ সালে প্রথম দেবীগঞ্জ মুক্ত দিবস পালন হয়। ২০১৬ সাল পর্যন্ত তার নেতৃত্বে দেবীগঞ্জ মুক্ত দিবস পালিত হয়। এরপর থেকে মূল উদ্যোক্তাকে অবমূল্যায়ন করে নামধারী মুক্তিযোদ্ধারা নামমাত্র অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দেবীগঞ্জ মুক্ত দিবস পালন করছে। দেবীগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার স্বদেশ চন্দ্র রায় বলেন, ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা কে এটা প্রমাণ করার দায়িত্ব অভিযোগকারীর। যদি ভুয়া কেউ থাকেন তাহলে তিনিই তাদের মুক্তিযোদ্ধা বানিয়েছেন। জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের ভূঁইয়া মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান চান না মর্মে আবেদন পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

ahammad

২০১৯-১১-২২ ১২:২৭:৫৫

জনাব,আবুল খায়ের ভুইয়ার সাথে ১০০% সহমত পোষন করলাম। সারাদেশে ভূয়ামুক্তি যোদ্ধার অভাব নাই। অন্তত ৩৫/৩০% খুজে পাওয়া যাবে, অনেক রাজাকার ও মুক্তিযোদ্ধার সিকৃতি পেয়েছে।

আপনার মতামত দিন

জম্মু-কাশ্মীরে ইন্টারনেট পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও বন্দিদের মুক্তি দাবি মার্কিন কংগ্রেসে

গাজীপুরে চোর সন্দেহে পিটিয়ে যুবককে হত্যা

শাহ আমানতে যাত্রীর কাছ থেকে ২০ স্বর্ণবার উদ্ধার

বরকে আটকে রেখে অন্য যুবকের সঙ্গে বিয়ে

বিকালে চলচ্চিত্র শিল্পীদের পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী

আরও এক বালিকাকে ধর্ষণ শেষে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ

অভিনেত্রী নওশাবার মামলার স্থগিতাদেশ আপিলেও বহাল

রাজধানীতে ৪৪ মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী গ্রেপ্তার

বরিশালে ট্রিপল মার্ডারের ঘটনায় আটক ২

কায়রো থেকে রাজধানী সরাচ্ছে মিশর

পিরোজপুরে বাসচাপায় অটোরিকশার ৩ যাত্রী নিহত

স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা

সীমান্তের ৮২ কিলোমিটারে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করবে ভারত

যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে তুরস্ক ও গ্রিস!

‘পুরস্কার নিয়ে আফসোস নেই আমার’

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‘ডাকাতদলের গোলাগুলি’তে একজন নিহত