বিমানবন্দরে হেনস্তার শিকার প্রবাসীরা

আবদুল মোমিত (রোমেল) ফ্রান্স থেকে

প্রথম পাতা ১৮ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৪০

বিমানবন্দরে আসা-যাওয়ার পথে প্রতিনিয়ত হয়রানি ও ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন প্রবাসীরা। বর্তমানে প্রায় ১ কোটি ২৬ লাখ ৭৩ হাজার ৮৬১ জন প্রবাসী বাংলাদেশি বিশ্বের আনাচে-কানাচে বসবাস করছেন।    প্রবাসীরা দেশে ফেরত আসাকালীন সময় প্রতিনিয়ত বিমানবন্দরে কর্মরত কতিপয় কর্মকর্তার অসদাচরণ এবং দুর্নীতির মাধ্যমে নানা হয়রানির শিকার হচ্ছেন। অসংখ্য অভিযোগ, বছরের পর বছর সংবাদ প্রকাশ, মন্ত্রীপর্যায়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সিভিল এভিয়েশনের কড়া তদারকি, প্রশাসনিক নজরদারিসহ গোয়েন্দা বিভাগগুলোর নানামুখী তৎপরতার পরও বন্ধ হচ্ছে না হযরত শাহ্‌জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবাসী হয়রানি। সমপ্রতি বাংলাদেশে ঢাকা বিমানবন্দর দিয়ে যাওয়া-আসার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে ফ্রান্স প্রবাসী তারেক আহমদ এবং আফসানা আক্তার মীম, ইতালি প্রবাসী আফজাল হোসেন, শেফালী বেগম, স্পেন প্রবাসী রুনা আক্তার,  পর্তুগাল প্রবাসী আয়েশা আক্তার এবং সিদ্দিকুর রহমান বলেন  বিমানবন্দরের কর্মকর্তাদের এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদ করতে গেলে উল্টো ভুক্তভোগীকেই ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়। দুঃখজনক হলেও সত্য, হাত তোলা হয় প্রবাসীদের গায়েও!   যার বাস্তব চিত্র  সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ কয়েকবার ভাইরাল হয়েছে এমন দৃশ্য।  কিন্তু এই কথা বলতে বাধা নেই যে প্রবাসীর ঘামের টাকা সচল রাখছে  দেশের চাকা। শাহ্‌জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সবচেয়ে  বেশি নিগৃহীত ও নাজেহালের শিকার হচ্ছেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশসমূহে কর্মরত বাংলাদেশিরা। ইমিগ্রেশন বিভাগে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা এসব প্রবাসী কর্মজীবীর সঙ্গে খুব দুর্ব্যবহার করেন। তুই-তুকারি করে কথা বলা, পেটে কলমের গুঁতা  দেয়া, ইয়ার্কির ছলে দুই হাতে গলা  চেপে ধরে পাছায় লাথি মেরে হটিয়ে দেয়া নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে।
এসব অপমানজনক ঘটনায় ক্ষুব্ধ অনেক প্রবাসী রাগে-দুঃখে হাঁউমাউ করে কেঁদে ওঠেন, অপমান-লজ্জায় বিমানবন্দরের  মেঝেতে গড়াগড়ি পর্যন্ত দেন। অনেকে জীবনে আর কখনো দেশে না ফেরার শপথ পর্যন্ত করেন।

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকেও বিমানবন্দরে যাত্রী হয়রানি বন্ধের ব্যাপারে কঠোর নির্দেশনা দেয়া থাকলেও কিছুতেই কিছু হচ্ছে না।  কোনোভাবেই বন্ধ হচ্ছে না এ হয়রানি। নিরাপত্তা তল্লাশির নামে যাত্রীদের এ ভোগান্তির মুখে পড়তে হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, যাত্রীদের লাগেজ সংগ্রহে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়। অনেক সময় সংঘবদ্ধ চক্র লাগেজ গায়েব করে  ফেলে। প্রবাসীদের পাশাপাশি ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে বিদেশিরা বিমানবন্দরে এসে রক্ষা পাচ্ছেন না এই হেনস্তার শিকার  থেকে। ভুক্তভোগী যাত্রীরা জানান, মূলত ইমিগ্রেশন পুলিশের হয়রানির শিকার হয়ে বহির্গামী যাত্রীদের নাভিশ্বাস। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক  দেশে ফেরা বেশ ক’জন ইউরোপ প্রবাসী জানান, যাচাই-বাছাই করেই দূতাবাস তাঁদের ট্রাভেল পাস দিয়েছে। এটা নিয়ে ফেরার সময় বিদেশের বিমানবন্দরে কোনো অসুবিধা হয়নি। নিজ দেশের বিমানবন্দরে এসে যত ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে। বিমানবন্দর অভ্যন্তরের অন্তত ১০টি ধাপে প্রবাসীদের কাছ থেকে চাহিদামাফিক টাকা হাতানো হয় বলে ভুক্তভোগী প্রবাসীরা জানিয়েছেন। গত ২০ বছরে হযরত শাহ্‌জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাত্রী ও বিমান ওঠানামার সংখ্যা বাড়লেও বাড়েনি যাত্রীসেবার মান। আগে লাগেজ পেতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বিমানবন্দরে প্রবাসীদের অপেক্ষা করতে হতো। এখনো সেই পরিস্থিতি  থেকে মুক্তি মিলেনি প্রবাসীদের।  দ্রুত যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে তাদের বিমানবন্দর ত্যাগের অনুমতি  দেয়ার দাবি করেছেন তারা। নিজের  দেশে ফিরে শুনি, আমি নাকি  রোহিঙ্গা। ছয়বছর আগে পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশে গেছি। আমরা প্রবাসীরা বিদেশেও দাম পাই না,  দেশেও দাম পাই না। প্রবাসীদের খুব  বেশি চাওয়া নেই, হাজারো প্রবাসী স্বপ্ন দেখে কিছু অর্থ উপার্জন করে দেশে ফিরে যাবে। ফিরে যাবে প্রিয়তমা স্ত্রীর কাছে, সন্তানের কাছে, বাবা-মায়ের কাছে। প্রবাসে পাখির ডাকে ভোরে ঘুম ভাঙে না, ভাঙে ঘড়ির অ্যালার্মে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

azam faruque

২০২০-০১-১৮ ২০:৩৯:৫৯

mr. abdul mumit you mention only Spain, Portugal,Italy & France people those are victim in dhaka airport, you did not mention middle east where million people are working and everyday thousand worker back to home they are more sufferer then yours. you know only 5 to 6% remittance come from europe and maximum remittance from saudi arabia about 65%, dubai 12%, kuwait ,oman qatar baharin7% when write something please write for all those are sufferd not only high clss europe country residence. in middle east maximum we are are in good position earned money and sending through banking chanel . so do not neglect middle east remittance fighter.

Ali ashrab

২০২০-০১-১৮ ০৬:৩৯:০৬

মনেহয় আমরা ওদের চাকর বাকর এত খারাপ ব্যাবহার

MizanurRahman

২০২০-০১-১৭ ২৩:৩৫:৩১

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকা সত্বেও প্রবাসীদের সাথে বাজে ব্যবহার করে। এরা কারা? এদের বিচার হওয়া উচিত।

পলাশ

২০২০-০১-১৭ ২৩:০৯:৫৮

আমার বন্ধু ৩০/১০/২০১৯তারিখে sv08 ফ্লাইটে দুপুর ২ টায় ল্যান্ড করে।যদিও তা ১২ টার সময় ল্যান্ড করার কথা ছিল।বাইরে আসছে ৫ টায়।বন্ধুদের গিফ্ট করার জন্য ৫ টা মোবাইল আনছিলো কিন্তু বিমান বন্দর কর্তৃপক্ষ আনতে দেয় নাই। মোবাইল ৫ টা নিয়ে নিছে। এরপরে ৩ বার গিয়েও দেয় নি।

Humayun

২০২০-০১-১৭ ২১:০১:৪১

আপনার অভিযোগ মনগড়া ভিত্তিহীন, অসৎ উদ্দেশ্য কোন গোষ্ঠীর স্বার্থ হাসিলের জন্য এমন খবর প্রচার করছেন। আপনার বিরুদ্ধে মানহানি মামলা করা উচিত

md nurul amin

২০২০-০১-১৮ ০৯:০৯:২৭

যাদের কষ্টের টাকা দেশের অর্থনীতি সচল রাখছে, তাদেরকে বিমান বন্দরে হয়রানী করা অনেক অনেক কষ্টের এবং ন্যাক্কারজনক ঘটনা। এই ধরনের ঘটনার সুষ্টু তদন্ত করে সঠিক ভাবে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। আশা করি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মহোদয়ের সমীপে ঘটনাটি আপনার প্রেরণ করবেন।

জাফর আহমেদ

২০২০-০১-১৭ ১২:২৭:২৬

ধন্যবাদ এই প্রতিবেদনটির জন্য। আমরা যারা প্রবাসী তাদের জন্য অনেক কথাই বলে, কিন্তু কিছুই তার কার্যকারিতা নেই। বাংলাদেশের বিমান বন্দর গুলোতে আমরা যখন নামী তখন ঐ পোশাক ধারী লোক গুলোর কাছে বলির পাঁঠার মত, প্রথমে ঘুষ চাওয়ার হয় ফকিরের মতো। না দিলে চাইবে ডাকাতের মতো, তার পর ও না ফেলে। আমাদের মালামাল নিয়ে টানাটানি। এর পর ও না ফেলে তল্লাশির নামে হয়রানি। কতো গুলো সোনা আনচস কাপড় চোপড় খোল এমন অনেক কিছুই হয়।

আপনার মতামত দিন



প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

এনু-রূপনের বাড়ি থেকে সাড়ে ২৬ কোটি টাকা, ৫ কোটি টাকার এফডিআর, ১ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার

এ যেন বাড়ি নয়, ব্যাংক

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ব্যাংককে দুই অ্যাকাউন্ট

পাপিয়ার ডেরায় যাওয়াদের তালিকা দীর্ঘ

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

পাপিয়ার মদতদাতাদের খোঁজা হচ্ছে

আলোচনায় সেলিম প্রধান

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

পিবিআই প্রতিবেদন

সালমানের মৃত্যু নেপথ্যে প্রেম

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কি হচ্ছে মালয়েশিয়ায়?

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

করোনা ছড়াচ্ছে দেশে দেশে

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

মুজিববর্ষ

সংসদের বিশেষ অধিবেশনে বক্তা প্রণব মুখার্জি

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত