যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে

স্টাফ রিপোর্টার

দেশ বিদেশ ২৬ জানুয়ারি ২০২০, রোববার

যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী ও তার পরিবারকে মিথ্যা হত্যা চেষ্টার মামলা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে এক পুলিশ কনস্টেবলের বিরুদ্ধে। গতকাল দুপুরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন কনস্টেবলের স্ত্রী রুনু সুলতানা। এ সময় তার দুই শিশু সন্তান ও মা উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্যে রুনু সুলতানা জানান, ২০১১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর পুলিশ কনস্টেবল মো. জহিরুল ইসলামের সঙ্গে তার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তারা দুজনের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থানার শিবপুর গ্রামে। জহিরুল বর্তমানে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ ছোটফুল পুলিশ লাইনে কর্মরত। তাদের সায়মা কুরসী নিহা (৮) ও মাহাদী কালবী আজীম (১৮ মাস) নামের দুই সন্তান রয়েছে। রুনু সুলতানা অভিযোগ করে বলেন, তার স্বামী জহিরুল ইসলাম তাদের দুই সন্তান ও তার ভারণপোষণ দিচ্ছেন না।
বিভিন্ন সময় ভরণপোষণ চাইতে গেলে দুই সন্তানকে অস্বীকার করেন। এসব বিষয় চট্টগ্রামের ডিআইজি এবং জহিরুল যেই এসপির অধীন কাজ করছেন তাকে লিখিত অভিযোগ করেছেন। গত ঈদুল আজহার পরের দিন জহিরুল তার নিজের বাড়ি থেকে কোথাও গিয়ে তার পুরুষাঙ্গ সামান্য অংশ কেটে আনে। পরে তাকে এবং তার বৃদ্ধা মা ও দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে নবীনগর থানায় একটি হত্যা চেষ্টার মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার স্বাক্ষী ও বাদী জহিরুলের বানানো। এসব ঘটনার বিচার চেয়ে এসপির কাছে গেলে এসপি তার রুমে বসিয়ে রেখে পুলিশ ডেকে ধরিয়ে দেন। পরে তিনি শিশু সন্তানকে নিয়ে তিন মাস জেল খাটেন। জেল থেকে বের হওয়ার পরও জহিরুল কল করে হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। বিষয়গুলো উল্লেখ করে আইজিপি বরাবর অভিযোগপত্রও দেন তিনি। এখন দুই শিশু সন্তানকে নিয়ে প্রতিমাসে আদালতে হাজিরা দিতে হচ্ছে। এ ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপিসহ সকলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ভুক্তভোগী এই নারী। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান, তার স্ত্রীর অভিযোগ মিথ্যা। তিনি তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করেননি। তার মা মামলা করেছেন। এবং সেটি সত্য মামলা।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

zahir

২০২০-০১-২৭ ১৪:২২:০৫

কোন প্রকার যাচাই করা ব্যাতিত স্বার্থপ্রিয় সংবাদ প্রচারনা করে, এমন সব রিপোর্টারদের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রয়োগের মাধ্যমে নির্মূল করা জরুরি। অহেতুক হয়রানি ও একতরফা প্রচারনার ফলে সামাজিক বৈষম্যের জটিলতা বৃদ্ধি ও গণমাধ্যমের প্রতি মানুষ আস্হাহীন হচ্ছে।

আপনার মতামত দিন



দেশ বিদেশ অন্যান্য খবর

৪৯ লাখ জাল রুপিসহ প্রতারক চক্রের ৮ সদস্য গ্রেপ্তার

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

রাজধানীর সবুজবাগ থানার কদমতলা থেকে ভারতীয় জাল রুপি ও জাল রুপি তৈরির সরঞ্জামসহ আটজনকে গ্রেপ্তার ...

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক

আরো কর্মী নিয়োগ ও বিনিয়োগে কাতারের প্রতি আহ্বান ঢাকার

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ডিকাব টকে চীনা দূত লি

রোহিঙ্গা সঙ্কটে দূতিয়ালি অব্যাহত রাখার প্রত্যয়

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বাম জোটের আলোচনা সভা

‘ব্যাংক লুটপাট এখন উন্নয়নের অংশ হয়ে গেছে’

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

এসপি’র কাছে স্বামীর অভিযোগ

ট্রাকচালকের স্ত্রীকে তুলে নিয়ে গেল পুলিশ

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

তিনটি আসনের উপনির্বাচনে জাপার প্রার্থী ঘোষণা

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জাতীয় সংসদের ৩টি আসনের উপ-নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে জাতীয় পার্টি (জাপা)। এর মধ্যে ...

ঢাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ঢাকার আশকোনা রেলগেটে ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত পরিচয়ের যুবক (২২) নিহত হয়েছেন। গতকাল সকালে বিমানবন্দর ...

মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন

শিশু হাসপাতাল ও শিশু স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট একীভূত হচ্ছে

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

একীভূত হচ্ছে ঢাকা শিশু হাসপাতাল ও শিশু স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট। দু’টি সংস্থাকে একীভূত করতে ‘বাংলাদেশ শিশু ...

সেনাপ্রধানের সঙ্গে জাম্বিয়ার সেনাবাহিনী কমান্ডারের সৌজন্য সাক্ষাৎ

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বাংলাদেশে সফররত জাম্বিয়ার সেনাবাহিনী কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল উইলিয়াম মাইপাম্বে সিকাজ্যুই গতকাল সেনাবাহিনী সদর দপ্তরে বাংলাদেশ ...



দেশ বিদেশ সর্বাধিক পঠিত