সুস্থ হয়ে ওঠা ২০০ তাবলিগ সদস্য প্লাজমা দিলেন

কলকাতা প্রতিনিধি

ভারত ২৮ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:১০

ভারতে করোনা সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার পেছনে দিল্লিতে তাবলিগ জামাতে যোগ দেওয়াদের দায়ী করে বিভিন্ন মহল থেকে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সাংবাদিক সম্মেলনে এই বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। এই ভাবে মুসলিমদের উপরে দায় চাপানো নিয়ে বিশ্বজুড়ে কড়া প্রতিক্রিয়া হয়েছে। ওআইসি বিবৃতি দিয়ে এর সমালোচনা করেছে। ভারতের বুদ্ধিজীবীদেরও একাংশ জামাতের আয়োজকদের হঠকারী কাজের জন্য একটি সম্প্রদায়কে দায়ী করা ঠিক নয় বলে জানিয়েছে। তবে সব বিভেদ ভুলে তাবলিগের করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা সদস্য প্লাজমা দান করে মানবিকতার নজির তৈরি করেছেন। গত রবিবারই অবশ্য তাবলিগ জামাতের প্রধান গোপন স্থান থেকে এক অডিও বার্তায় তাবলিগের সুস্থ হয়ে ওঠাদের প্লাজমা দেবার আবেদন জানিয়েছিলেন। সোমবার থেকেই শুরু হয়েছে তবলিগ জামাতের ২০০ জন সদস্যের প্লাজমা সংগ্রহের কাজ।
সুলতানপুরী এবং নারেলার দুটি কোভিড কেয়ার সেন্টারে এই প্লাজমা সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে। এইমসের মেডিকাল সুপার ডা. ডি কে শর্মা জানিয়েছেন, আমরা বেশ কয়েকজন দাতার থেকে প্লাজমা সংগ্রহ করেছি। এবার আমরা উপযুক্ত গ্রহিতার খোঁজ করছি, যারা ইনটেন্সিভ কেয়ার ইউনিটে রয়েছেন, অথচ প্লাজমা থেরাপি সহ্য করতে পারবেন। যাঁদের রেসপিরেটরি রেট ৩০-এর বেশি (২০ স্বাভাবিক) এবং অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৯০ শতাংশের কম (৯৫ থেকে ১০০ শতাংশ)স্বাভাবিক অথবা ফুসফুসে পানি জমেছে তাঁদেরই প্লাজমা থেরাপি করা হয়। ভ্যাকসিন এবং ওষুধের অভাবে প্লাজমা থেরাপি দিয়েই চিকিৎসা চালানোর পথে এগিয়েছেন চিকিৎসকরা। এখনও পর্যন্ত দিল্লির লোক নায়ক হাসপাতালে ৬ জন রোগীর প্লাজমা থেরাপি করা হয়েছে। ভাল সাড়াও দিচ্ছেন রোগীরা।

আপনার মতামত দিন

ভারত অন্যান্য খবর

আনলক হওয়ার প্রথম দিনেই কলকাতায় মানুষ ঝুঁকি নিয়ে বেরিয়ে পড়েছেন, প্রবল যানজটে দুর্ভোগ মানুষের

১ জুন ২০২০

একদিকে কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ছে, অন্যদিকে জনজীবন স্বাভাবিক করার তাগিদে অফিস থেকে কলকারখানা, শপিং মল ...



ভারত সর্বাধিক পঠিত