পাসপোর্টে জট

আল-আমিন

প্রথম পাতা ৮ আগস্ট ২০২০, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৩৫

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরে বড় ধরনের জট সৃষ্টি হয়েছে। গত ২৬শে মার্চ সরকারি অফিস ছুটি ঘোষণার পর পাসপোর্ট অফিসও বন্ধ হয়ে যায়। এতে গত ৪ মাসে পাসপোর্ট অফিসে সাড়ে ৩ লাখ আবেদন ঝুলে আছে। যার অধিকাংশ ফিঙ্গার প্রিন্টের কারণে। এ ছাড়াও গত ৪ মাসে দেশের বাইরে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাস থেকে বিশেষ বিমানে করে ৫ লাখ আবেদন দেশে এসেছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে আবেদনকারীদের পাসপোর্ট দিতে পারছেন না কর্তৃপক্ষ। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পাসপোর্ট ডেলিভারি দেয়া নিয়ে প্রতিষ্ঠানটিতে আরো বড় ধরনের জটিলতার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। কারণ ওই সময় নতুন আবেদন পড়ার পাশাপাশি পুরনো যাদের আবেদন ঝুলে আছে তাদেরও পাসপোর্ট ডেলিভারি দিতে হবে।
পাশাপাশি অনলাইনেও আবেদন বেশি পড়বে। বিষয়টি নিয়ে খোদ কর্তৃপক্ষই চাপের মধ্যে আছেন।

কারণ বড় ধরনের ডেলিভারি দেয়ার জন্য যে প্রিন্ট মেশিন ও দক্ষ জনবল থাকার কথা তা পাসপোর্ট অধিদপ্তরে ঘাটতি রয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, তারা এই জট কমাতে নানামুখী উদ্যোগ নিচ্ছেন। পাশাপাশি একাধিক প্রিন্ট মেশিন কেনারও প্রক্রিয়াধীন আছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতির কারণে পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন অধিদপ্তরের সেবাকার্য বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বড় ধরনের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার।

এ বিষয়ে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ  মানবজমিনকে জানান, প্রাণঘাতী করোনায় পাসপোর্ট অধিদপ্তরে কাজের গতি কমেছে। নতুন আবেদন নেয়া হচ্ছে না। নতুন আবেদনে ফিঙ্গার প্রিন্ট নিতে হয় এজন্য সেটি বন্ধ আছে। কারণ সেখানে করোনা ছড়ানোর শঙ্কা আছে। ই-পাসপোর্ট বন্ধ আছে। তিনি জানান, শুধুমাত্র রি-ইস্যুর আবেদন নেয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দ্রুত আগের মতো আমরা ডেলিভারি দিতে পারবো।

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬শে মার্চ সরকারি ছুটির কারণে বন্ধ হয়ে যায় পাসপোর্ট অফিস। বন্ধ হয়ে যায় ই-পাসপোর্টের অনলাইন আবেদনও। পুরনো ডেলিভারিগুলোও দেয়া হয়নি। এতে জট পড়েছে পাসপোর্ট অফিসে। এখন শুধু ডেলিভারি দেয়া হচ্ছে রি-ইস্যু করা পাসপোর্টগুলো। এ ছাড়াও যেসব মুমূর্ষু রোগী বিদেশে চিকিৎসা নিতে চান তাদের সুপারিশের ভিত্তিতে জরুরি পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে।

সূত্র জানায়, প্রতিদিন গড়ে ১৪ হাজার আবেদনকারী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন পাসপোর্ট অফিসে আবেদন করতেন। আবেদনকারীদের ফি হিসাব করলে তাদের কাছ থেকে অধিদপ্তর প্রতিদিন প্রায় ৫ কোটি টাকা আদায় করে থাকে। ২২ কর্মদিবসে মাসে দাঁড়াই ১৫০ কোটি টাকা। এখন রি-ইস্যু ও জরুরি পাসপোর্ট থেকে সরকার দিনে মাত্র ২০ লাখ টাকা রাজস্ব পাচ্ছে। এতে সরকার বড় ধরনের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে চলতি অর্থ বছরে সরকার ১১ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব হারাবে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Asad

২০২০-০৮-১০ ১৩:৪৪:৪৮

১ জানুয়ারী আমি জরুরি পাসপোর্ট বানাতে দেই কিন্তু এখন ও পাইনি হায়রে আমার দেশ।

অচেনা

২০২০-০৮-০৮ ০৮:৫১:৫৯

৮ মার্চের আগে যাদের পুলিশ ভেরিবিকেশন হয়েছে, তার দ্রতই পাশপোর্ট পাবে এমন সব তথ্য যোগ করা যেত

Rashed

২০২০-০৮-০৭ ১২:৩৫:৩৮

ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতেও ভোগান্তি হচ্ছে।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

মাদ্রাসা বন্ধ ঘোষণা, শিক্ষার্থীদের প্রত্যাখ্যান

অশান্ত হাটহাজারী ক্ষোভ, বিক্ষোভ

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

কোন পথে হেফাজত

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঘোষণা ছাড়া পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অনুতপ্ত

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

বাজারে হেরফের নেই

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

পশ্চিমবঙ্গেও ক্ষোভ

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

পেট্রাপোল সীমান্ত কিংবা উত্তর চব্বিশ পরগনার  ঘোজাডাঙ্গা ল্যান্ডপোর্টে এখন সারি সারি ট্রাক দাঁড়িয়ে আছে টন ...

বাজারে ক্রেতা কম, দাম কমেনি

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

করোনায় আরো ২১ জনের মৃত্যু শনাক্ত ১৬১৫

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

দেশে করোনার কারণে প্রতিদিনই মৃত্যুর মিছিল লম্বা হচ্ছে। বাড়ছে মৃত্যুর হার। গত তিনদিন মৃত্যুর সংখ্যাটা ...



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত