ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশন পারকিনসন্স ডিজিজে আক্রান্ত রোগীদের জন্য আশার আলো

শরীর ও মন

ড. খন্দকার আবদুল্লাহ আল মামুন | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার
মানুষের মস্তিষ্ক এক বিস্ময়ের আধার। আমাদের কাছে এখনো মস্তিষ্ক সম্পর্কে অনেক কিছুই অজানা। মস্তিষ্কের ছোট ছোট সমস্যাও বিরাট হয়ে প্রভাব ফেলে আমাদের সারা শরীরে। মস্তিষ্কের রোগ নিয়ে গবেষণা তাই চলছে অবিরামভাবে। স্ট্রোক, মাইগ্রেন, ব্রেন টিউমার, আরও নানা রোগ। পারকিনসন্স ডিজিজ আলোচনায় আসে একজন মানুষের কারণে, তিনি হলেন কিংবদন্তি বক্সার মোহাম্মদ আলী। কিন্তু লাখ লাখ মানুষ বিশ্বজুড়ে এই রোগে ভুগছেন। সংখ্যাটা ইতিমধ্যে এক কোটি ছাড়িয়েছে। মস্তিষ্কের প্রাণঘাতী রোগের মধ্যে পারকিনসন্স ডিজিজ রয়েছে দুই নম্বর স্থানে। পারকিনসন্স ডিজিজে আক্রান্ত রোগীর চলাফেরার উপর নিয়ন্ত্রণ কমে যায় আস্তে আস্তে। আরও ভয়ঙ্কর হলো, এই রোগের কোনো নিরাময় নেই, কেবল রয়েছে রোগের লক্ষণগুলোকে নিয়ন্ত্রণের কিছু পদ্ধতি। এসবের মধ্যে শুরু পদ্ধতি হলো ওষুধ। কিন্তু সবচেয়ে জনপ্রিয় ওষুধ, লেপাডোভা থেরাপির রয়েছে দীর্ঘমেয়াদি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া। তাই এরপরে নিউরোলজিস্ট আর নিউরোসার্জনরা ঝুঁকেছেন সার্জারির দিকে। পারকিনসন্স ডিজিজ আক্রান্ত রোগীর জন্য সার্জারির প্রক্রিয়া দুইটি- প্রথমটি হলো লিজিয়ন থেরাপি, আর দ্বিতীয়টি হলো ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশন। লিজিয়ন থেরাপি কাজ করে মস্তিষ্কের গভীরে গিয়ে কিছু বাছাই করা কোষ ধ্বংস করার মাধ্যমে। বর্তমানে ইলেকট্রোফিজিক্যাল টেকনিক আর ইমেজিং টেকনিকের উন্নতির যুগে এই ধরনের সার্জারি আগের চেয়ে অনেক সহজ। কিন্তু পারকিনসন্স ডিজিজের সবচেয়ে আধুনিক চিকিৎসা হলো ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশন। দক্ষিণ এশিয়া, বিশেষ করে বাংলাদেশে এই অত্যাধুনিক পদ্ধতির প্রয়োগ এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে-কারণ এর জন্য প্রয়োজন অত্যন্ত সূক্ষ্ম দক্ষতা আর বিশেষায়িত জ্ঞান। যারা সামর্থ্যবান, তারা হয়তো সিঙ্গাপুর, ভারত বা উন্নত দেশে গিয়ে এই চিকিৎসা পান, কিন্তু তা সাধারণ মানুষের ধরা-ছোঁয়ার বাইরেই থেকে যাচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে আগামী ২৩ থেকে ২৭শে সেপ্টেম্বর ধানমন্ডির ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আইবিআরও-এপিআরসি বাংলাদেশ এসোসিয়েট স্কুল অফ ট্রান্সলেশনাল নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড রিসার্চ, যার মূল ব্যয় বহন করছে আইবিআরও- ইন্টারন্যাশনাল  ব্রেন রিসার্চ অর্গানাইজেশন, বিশ্বের প্রধান ব্রেন গবেষকদের সংস্থা। সর্বমোট ১৪ টি লেকচার, ২টি লাইভ ডেমনেস্ট্রশন, তিনটি ডিসকাশন, আর একটি মিনি কনফারেন্স থাকছে ব্রেন রিসার্চার, সার্জন, আর একাডেমিশিয়ানদের এই মিলনমেলায়। মূল প্রতিপাদ্য থাকছে ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশন নিয়ে। বিশ্ববিখ্যাত অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসছেন প্রফেসর ডা. টিপু আজিজ, পিএইচডি- বিশ্বের শ্রেষ্ঠ নিউরো সার্জনদের মধ্যে একজন, লিজিয়ন থেরাপি আর  ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশনের উপর যার রয়েছে ২৫ বছরের অভিজ্ঞতা। এখানে তিনি কাজ করবেন এনআইএনএস, বিএসএমএমইউ, ঢাকা মেডিকেল কলেজের স্বনামধন্য প্রফেসরদের আর গবেষকদের সঙ্গে। বাংলাদেশে বছরে পারকিনসন্স ডিজিজে মারা যান ১৬০০ জন মানুষ। এই হার ক্রমবর্ধমান। তাই উন্নত ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশন পদ্ধতি এখন সময়ের দাবি। আশা করা যায়, ইন্টারন্যাশনাল ব্রেন রিসার্চ অর্গানাইজেশন আর ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এই সমন্বিত উদ্যোগ আমাদের জন্য খুলে দেবে সম্ভাবনার এই নতুন দুয়ার।
[লেখক: পরিচালক, এইমস ল্যাব ও সহযোগী অধ্যাপক, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি]

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় আরও তিন দেশ

‘যেভাবে ভাবি সেভাবে এখনো ক্যামেরার সামনে অভিনয় করতে পারিনি’

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের ব্যাপক আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন: ইউএনএইচআরসি

ভিত্তিহীন খবরে তোলপাড়

মার্কেল?

ফের সীমান্তে রোহিঙ্গা স্রোত

সন্তানদের সামনেই শামিলাকে ধর্ষণ করে বার্মিজ সেনারা

মন্ত্রী-এমপিরা আমাদের সঙ্গে আছেন

মনোনয়ন দৌড়ে ২৩ নেতা

ট্রাকচালক থেকে সপরিবারে ইয়াবা ব্যবসায়ী

খুচরা বাজারেও কমেছে চালের দাম

বাড়লো আটার দাম

মালিতে ৩ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী নিহত

উল্টো পথে যাওয়া প্রতিমন্ত্রী, সচিবের গাড়িসহ ৫০ যানবাহনকে জরিমানা

উল্টো পথে গাড়ি জরিমানা গুনলেন প্রতিমন্ত্রী ও সচিবরা

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বিএনপির তিন প্রস্তাব