কুষ্টিয়ায় সংঘর্ষে আহত আরো একজনের মৃত্যু

বাংলারজমিন

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার
কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের বজরুখ বাখই গ্রামে আধিপত্য বিস্তারে বিবদমান দ্বন্দ্বের জের ধরে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ছানোয়ার হোসেন (৩০) নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকালে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এই নিয়ে এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়ালো তিনজনে। নিহত সানোয়ার উপজেলার বাখইল গ্রামের মৃত: মারফত মণ্ডলের ছেলে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, চিকিৎসাধীন ছানোয়ারের খাদ্যনালী ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় তার মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে। কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার অফিসার ইনচার্জ রতন শেখ জানান, স্থানীয়ভাবে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে পূর্ব থেকে বিবদমান দ্বন্দ্বের জের ধরে মাঝে মধ্যেই উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
এ ঘটনায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে এ পর্যন্ত ৩ জন নিহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এই ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে। ট্রিপল মার্ডারের ঘটনায় উপ-পরিদর্শক কমলেশ বাদী হয়ে দু’পক্ষের দুই প্রধানসহ ১০০ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ৪০০-৫০০ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। এ মামলায় আসামি কেরামত বিশ্বাস গ্রেপ্তার হলেও বখতিয়ার হোসেন এখনও পলাতক রয়েছেন। তাঁকে ধরতেও পুলিশের অভিযান চলছে।
উল্লেখ্য, গত ৭ সেপ্টেম্বর সংঘটিত দু’পক্ষের সংঘর্ষে বিল্লাল হোসেন (৩৩) এবং এনামুল (৩৫) নামের দু’জন ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। ঐ ঘটনায় আহত ১৩ জনকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিলো।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

যশোরে বিএনপি নেতা অমিতের বক্তব্যে তোলপাড়

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু

‘বিষয়টি নিয়ে আমি বেশ উত্তেজিত’

পাঁচ দশকের দীর্ঘ লড়াই

ভিডিও দেখে অস্ত্রধারীদের খোঁজা হচ্ছে

‘অতিষ্ঠ হয়ে প্রেমিককে ছুরিকাঘাত’

ফল প্রকাশের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, অবরোধ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সময় লাগবে ৯ বছর!

মত প্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত, আক্রমণের শিকার নাগরিক সমাজ

মেয়র আইভী হাসপাতালে

জিয়াউর রহমানের ৮২ তম জন্মবার্ষিকী আজ

এবার আটকে গেল দক্ষিণের ১৮ ওয়ার্ডের নির্বাচনও

হাথুরুকে দেখিয়ে দেয়ার লড়াই

‘আপনার এত তাড়াহুড়া কিসের?’

সংবাদটি আমাকেও শোকে মুহ্যমান করে ফেলে

‘নেতৃত্ব তৈরির প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতেই ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ রাখা হয়েছিল’