৫৩ টন ত্রাণ নিয়ে এলো ভারতীয় বিমান

অনলাইন

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার, ২:১৫
মরক্কোর পর এবার রোহিঙ্গাদের জন্য ৫৩ টন ত্রাণ নিয়ে এলো ভারতীয় বিমান। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১ টা ১৫ মিনিটে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমান বন্দরে অবতরণ করে ভারতীয় বিমানটি। 

সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ সময় বিমান বন্দরে উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা বিমানের ত্রাণসামগ্রী বুঝিয়ে দেন। 

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বক) মাসুকুর রহমান শিকদার, শাহ আমানত বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক উয়িং কমান্ডার রিয়াজুল কবির প্রমুখ এ কাজে সহায়তা করেন।  

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বক) মাসুকুর রহমান শিকদার জানান, ভারতীয় ত্রাণবাহী বিমানটিতে চাল, ডাল, তেল, চিনি, লবণ, গুড়ো দুধ, বিস্কুট, নুডলস, সাবান ও মশারি রয়েছে। এগুলো ১৫ কেজি করে প্যাকেট করা। একজন রোহিঙ্গা ১৫ কেজির একটি প্যাকেট পাবেন। 

তিনি বলেন, ত্রাণসামগ্রীগুলো দ্রুত কক্সবাজারের টেকনাফ, উখিয়া ও বান্দরবানের নাক্ষ্যংছড়ি এলাকায় আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের কাছে পাঠানো হবে। 

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান জানান, ভারত রোহিঙ্গাদের জন্য মোট ৭ হাজার টন ত্রাণ পাঠাবে।
তম্মধ্যে প্রথম দফায় ৫৩ টন ত্রাণ নিয়ে এলো বিমানে করে। বাকী ত্রাণও জাহাজ ও বিমানে পাঠাচ্ছে ভারত। 

এর আগে আজ সকাল ৯ টা ২৫ মিনিটে মরক্কোর একটি বিমান রোহিঙ্গাদের জন্য ১৪ টন ত্রাণ নিয়ে চট্টগ্রাম শাহ আনাত বিমান বন্দরে পৌছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

নাখালপাড়া নিহত এক ‘জঙ্গি’ কাজেম আলী স্কুলের ছাত্র

ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র খুন

অর্থমন্ত্রীর গাড়ি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পথচারীদের ওপর, আহত ৩০

নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ

জিয়াউর রহমানের সমাধিতে খালেদা জিয়ার শ্রদ্ধা

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন গ্রেপ্তার

আইভীকে হাসপাতালে দেখে আসলেন ওবায়দুল

তিস্তা কূটনীতিতে চোখ ঢাকার

ভারতের পাশাপাশি মুসলিম দেশগুলোর অব্যাহত সমর্থন চেয়েছে বাংলাদেশ

শাহজালালে বৈদেশিক মুদ্রাসহ দুই যাত্রী আটক

শ্রীলঙ্কার টার্গেট ৩২১

ভারতের সুপ্রিম কোর্টে ফেলানী হত্যার রিট শুনানি ফের পেছালো

যশোরে বিএনপি নেতা অমিতের বক্তব্যে তোলপাড়

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু

‘বিষয়টি নিয়ে আমি বেশ উত্তেজিত’

পাঁচ দশকের দীর্ঘ লড়াই